আপনি কি জানেন ভারতের সবথেকে শিক্ষিত ব্যাক্তি, এক রাজনৈতিক নেতাও ছিলেন?

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

জর্জ বার্নাড শ বলেছিলেন “Politics is the last resort for the scoundrels” হয়তো ওনার সুদূরপ্রসারী ভাবনাতেও উনি ভাবতেও পারেননি, আমাদের দেশের একজন নিতান্ত ছাপোষা ভদ্রলোক  এর  গল্প। নিজের ক্যারিয়ার এর জন্য  রাজনীতি থেকে মুখ ফিরিয়ে নেওয়া প্রজন্ম তে দাড়িয়ে, মা-কাকিমা দের মতো বলতে ইচ্ছা করে ” যে রাঁধে, সে চুল ও বাঁধে”। আর একজন দ্বায়িত্বশীল নাগরিক এর সেই “চুল বাঁধা”, বহুদিন কিছু অশিক্ষিত মস্তান রা দখল করে রেখেছে, “Because there are no place called vacuum in this World.”  আশা রাখি এই লেখা পরে সেই অশিক্ষিত ও অল্পশিক্ষিত রাজনীতিবিদ রা একটু হলেও লজ্জা পাবেন।

আসুন একবার দেখি সেই ছাপোষা মারাঠি ভদ্রলোক এর জীবনপঞ্জী ঃ-

শ্রীকান্ত জিচকার (  জন্ম ১৪ই সেপ্টেম্বর, ১৯৫৪ কাটল, মহারাষ্ট্র  – মৃত্যু ২রা জুন, ২০০৪) তাঁর জীবন শুরু করেন একজন ডাক্তার হিসাবে MBBS, MD

এর পরে তিনিঃ

  • ওকালতি পাস করেন (LLB) ও LLM (International Law) নিয়ে পড়াশুনো করেন
  • তাঁরপর তিনি তাঁর বিজনেস ম্যানেজমেন্ট DBM এবং MBA শেষ করেন
  • সাংবাদিকতার জন্য তিনি B.Journ ও পাস করেন
  • সংস্কৃত নিয়ে পাশাপাশি ডক্টরেট ডিগ্রী ও পান

১৯৭৩ থেকে ১৯৯০ সালের ভিতর তিনি ৪২টি বিশ্ববিদ্যালয়ের summer এবং winter এর প্রতি ্পরীক্ষায় বসেন, এবং প্রায় সব কটি ক্ষেত্রেই প্রথম স্থান অর্থাৎ Gold Medalist হন।

  • 1978 সালে তিনি ইন্ডিয়ান সিভিল সার্ভিস পরীক্ষায় উতীর্ণ হন এবং ভারতীয় পুলিশ সার্ভিস (আইপিএস) হয়ে চাকরি তে যোগদান করেন
  • পরে পদত্যাগ করে আবার সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা দেন ও আইএএস (ইন্ডিয়ান অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস) পাস করে চাকরিতে যান।

মাত্র ৪ মাস চাকরি করার পর তিনি সাধারন নির্বাচনে প্রতিযোগিতা করার জন্য আবার পদত্যাগ করেন, এবং রাজনীতি তে যোগ দেন।

  • ১৯৮০ সালে তিনি বিধানসভায় নির্বাচিত হন এবং মাত্র ২৫বছর বয়েসে দেশের কনিষ্ঠতম বিধায়ক হিসেবে একসাথে ১৪টি দপ্তর সামলানোর দ্বায়িত্ত পান।
  • ১৯৯২-৯৮ তিনি রাজ্যসভার সদস্য হিসাবে মহারাষ্ট্র থেকে মনোনীত হন।

এছাড়াও শ্রীকান্ত জিচকার একজন শিক্ষাবীদ, চিত্রকর, পেশাদার ফটোগ্রাফার, এবং থিয়েটার অভিনেতা ও ছিলেন, তাঁর ব্যক্তিগত লাইব্রেরিতে ৫২,০০০ বই ছিল যা দেশের মধ্যে বৃহত্তম। লিমকা বুক অফ রেকর্ড অনুযায়ী আজ অবধি তিনি ভারতের  “Most Qualified Person”.

মাত্র ৪৯ বছর বয়েসে এক মর্মান্তিক গাড়ি দুর্ঘটনায় তাঁর মৃত্যু হয়। দেশ হারায় তাঁর সুযোগ্য সন্তান কে।

 

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

খবর এক নজরে…

No comments found

Sponsored~

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.