খবর ২৪ ঘন্টা

জাপানে তাণ্ডব চালাচ্ছে টাইফুন জেবি

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

জাপানে নয়া আতঙ্ক সুপার টাইফুন জেবি। প্রাণহানি এড়াতে ইতিমধ্যেই দশ লক্ষের বেশি নাগরিককে নিরাপদ স্থানে সরানো হয়েছে। বাতিল করা হয়েছে ৭০০টিরও বেশি বিমানের উড়ান। বিশেষজ্ঞদের মতে ১৯৬১ সালের পরে এটাই হতে চলেছে জাপানের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় টাইফুন। ওসাকা-হিরোসিমা রুটের রেল পরিষেবা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷ বন্ধ রাখা হয়েছে ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং স্কুল ও কলেজ৷ বেশ কয়েকটি সংস্থা তাদের কর্মীদের বাড়িতে বসে কাজ করার পরামর্শ দিয়েছে৷ জুলাই মাসে একাধিক টাইফুন ও প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের জেরে ২০০ মানুষের প্রাণহানি হয়৷


ঝড়ের দাপটে ইতিমধ্যে শিকোকুতে মঙ্গলবার দুপুরে শিকোকু শহরে ভূমিধসের জেরে যানচলাচল বিপর্যস্ত হয়ে গিয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, যেখানে দেখা যাচ্ছে কোয়োটো শহরে জলমগ্ন অবস্থায় কীভাবে সারসার ট্রেন দাঁড়িয়ে রয়েছে। টোকিও থেকে হিরোশিমার মধ্যে বুলেট ট্রেন পরিষেবাও বন্ধ রাখা হয়েছে। হোনসু, কোবে–র মতো শহরগুলির অবস্থাও খুবই খারাপ।
প্রবল বৃষ্টিতে বিধ্বস্ত জনজীবন। ওসাকা এবং কানসাইয়ের মতো অতি গুরুত্বপূর্ণ বিমানবন্দর জলমগ্ন হয়েছে।

বৃষ্টির পাশাপাশি ঘটেছে বন্যা ও ভূমিধসের মতো ঘটনাও। ঝড় আসার আগেই ২০৮ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগে হাওয়া বইয়ে শিকোকু শহরে। সেনা, দমকল, বিপর্যয় মোকাবিলা বিভাগের পাশাপাশি তৈরি রাখা হচ্ছে চিকিৎসকদের দলও। বিদ্যুৎসংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে প্রায় দু’‌লক্ষ বাড়িতে। ইতিমধ্যে জেবিকে শক্তিশালী টাইফুনের তকমা দিয়েছে জাপানের হাওয়া অফিস৷ ২৫ বছরে জাপানের বুকে আছড়ে পড়া টাইফুনের মধ্যে জেবিকে সবচেয়ে শক্তিশালী টাইফুন বলা হচ্ছে৷ তাই প্রশাসনের তরফে সবধরনের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে৷

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...