খবর ২৪ ঘন্টা

দেখে আসুন ভারতবর্ষের নায়গ্রা – আথিরাপল্লি, ইকো-ট্যুরিজম- অনন্য হানিমুন স্পট

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

বাহুবলী যে জলপ্রপাতের থেকে লাফ দিয়েছিল তা কিন্তু ভিএফএক্স এফেক্ট নয়, তা আসলে ভারতবর্ষের নায়গ্রা। দক্ষিণ ভারতে অবস্থিত স্থানটি আথিরাপল্লি জলপ্রপাতের নামেই পরিচিত। এখানে অনেক সিনেমার সিনেমাটিক লোকেশন রয়েছে। ঐশ্বর্যের ‘গুরু’ সিনেমায় সেই বৃষ্টি ভেজা ‘বরসো রে মেঘা’ নাচ আজও ইউটিউবে অনেকেই দেখেন। মোহময়ী অপূর্ব এক সুন্দর স্থান এই আথিরাপল্লি। অপূর্ব সুন্দর ব্যাকগ্রাউন্ডে অঝোর ধারায় নেমে আসা জলপ্রপাত রেখে এখানে আপনিও ক্লিক করতেই পারেন সেলফি।

সিনেমার কারণে আথিরাপল্লি জলপ্রপাতের জনপ্রিয়তা এখন বিশ্ববাসীর কাছে বেড়েছে কয়েকগুণ। এই মুগ্ধকর স্থানটি দক্ষিণ ভারতের মানুষের কাছে বরাবরই অন্যতম দর্শনীয় স্থান। এখানে ভ্রমণ করার জন্য আপনাকে ট্রেনে বা বিমানে পৌঁছাতে হবে কেরলের কোচিতে। কলকাতা থেকে দূরত্ব প্রায় ২২৬৮ কিমি। এক রাত্রি ট্রেনে জার্নি করে আপনি কোচি পৌঁছাতে পারেন। অথবা প্লেনেও যেতে পারেন। সেখান থেকে আপনাকে গাড়িতে ৭১ কিমি যেতে হবে। এখানে ট্যুরিস্ট স্পট হওয়ায় অনেক হোটেল রয়েছে। আপনাকে একটু কষ্ট করে ৪ কিলোমিটার গাড়িতে যেতে হবে। জায়গাটি সাধারণত অন্যতম সেরা হানিমুন স্পট নামেই পরিচিত।

ভাঝাচল। ভাঝাচলের থাকার জায়গার অভাব হবে না। তবে এখান থেকে বুক করে যাওয়াই ভাল। একটু নেট সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন।

এই স্থানটি সম্পর্কে নানা ধরনের তথ্য রয়েছে যা অনেকের কাছেই অজানা। আসুন সেই বিস্ময়কর তথ্যগুলি জেনেনি।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নায়াগ্রা জলপ্রপাতের সঙ্গে তুলনা করা হয় কারণ এটি কেরলের সবচেয়ে বড় জলপ্রপাত শুধু নয় অসাধারণ সৌন্দর্যের জন্যই বিখ্যাত হয়ে উঠেছে আথিরাপল্লি জলপ্রপাতটি।  নায়গ্রার মতো বিস্তৃত এবং দূরের থেকে ছবিতে নান্দনিক চিত্রটি দেখা যায়।


ভাঝাচল

আথিরাপল্লি জলপ্রপাতকে ঘিরে গড়ে ওঠা ভাঝাচল জীববৈচিত্রের স্নিগ্ধ স্থান। সবুজের সমারোহে স্থানটির সৌন্দর্য আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে শুধু তাই নয়, স্থানটির জীববৈচিত্রও অনেকটা বিস্তৃত করেছে। এই অঞ্চলে নানা ধরনের উদ্ভিদের সাথেই হতি, বাইসন, বাঘ, চিতা ও অন্যান্য জন্তুর বাস দেখতে পাওয়া যায়। এখানে গেলে দেখতে পাবেন ভাঝাচল জলপ্রপাত। এখানে চালাকুড়ি নদীর শাখা বেরিয়ে ভাঝাচুল জলপ্রপাতের সৃষ্টি করেছে। আথিরাপল্লি জলপ্রপাত বাদে এই জলপ্রপাতটিও স্থানীয়দের কাছে অন্যতম অফবিট ডেস্টিনেশন। আপনি ভারতের নায়গ্রা দেখে দক্ষিণের বেস্ট হানিমুন ডেস্টিনেশনে কয়েকটি দিন কাটিয়ে আসতেই পারেন। সামনে রয়েছে মালাক্কাপারাই চা বাগান, মুদিমালাই জাতীয় উদ্যান। সময় থাকলে সবই দেখে আসতে পারেন। না হলে হ্যারিকেন ট্যুর না করে আথিরাপল্লি ও ভাঝাচলের মজা নিন।

 

আথিরাপল্লিতে বিস্তৃত সবুজ ঘন বন। তাই ইকো-ট্যুরিজম স্পট হিসেবেই স্থানটি বিখ্যাত। আথিরাপল্লিতে জঙ্গল সাফারির বিশেষ ভাবে মন কেড়ে নেয়। এখানকার বিচিত্র ধরনের পশুপাখির এলাকাটির ক্যানভাসে অন্য এক রূপ এনে দিয়েছে। এই ভাঝাচুল জলপ্রপাত ছাড়াও থামবুরমুঝি জলাধার ও তার সঙ্গে আথিরাপল্লি জলপ্রপাতের শোভা, সবমিলিয়ে বলাই যায় এটি দেশের অন্যতম সেরা ইকো-ট্যুরিজম স্পট।

আগেই বলেছি স্থানটি সিনেমাটিক। এখানেই পছন্দের শ্যুটিং লোকেশন রয়েছে। এই জলপ্রপাতের নিচে বহু ভারতীয় সিনেমার শ্যুটিং হয়েছে। বলিউডের বিগ বাজেট ছাড়াও দক্ষিণী নানা বিগ শট ছবির ক্ষেত্রেও এটি অন্যতম সেরা শ্যুটিং স্পট। বলিউডের বাহুবলী, গুরু, দিল সে, খুশি, ইয়ারিয়া ছবির শ্যুটিং এখানেই করা হয়েছে, তেমনই দক্ষিণী ছবি পুন্নাগাই মান্নান, পাইয়া, হ্যাপির মতো সিনেমার নানা দৃশ্যেও এই নান্দনিক লোকেশনকে ব্যবহার করা হয়েছে। তাই দেরী না করে আজই বুক করে দিন আপনার পুজোর ডেস্টিনেশন – নায়গ্রা, থুড়ি ভারতের নায়গ্রা।

ভারতের নায়গ্রার সেই দৃশ্য ভিডিওতে দেখুন –

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...