বাংলার সব মেয়েই কন্যাশ্রী!‌‌ ….

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

কন্যাশ্রী শুধু আমাদের রাজ্যের নয়, গোটা দেশের, বিশ্বেরও গর্বের। কন্যাশ্রীর মেয়েরা সবকিছুকে জয় করবে আগামী দিনে। এমনই স্বপ্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের৷ মঙ্গলবার পঞ্চম বর্ষ কন্যাশ্রীর উদ্‌যাপন উপলক্ষে ভাষণ দিতে এসে এ কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী নিজেই। তিনি বলেন, ‌আগামী দিনে সারা বিশ্বে এটি মডেল হবে। মুখ্যমন্ত্রী এদিন আরও ঘোষণা করেছেন, পশ্চিমবঙ্গে নতুন ‘‌কন্যাশ্রী বিশ্ববিদ্যালয়’‌ স্থাপন করা হবে। তিনি বলেছেন, ‘‌কন্যাশ্রীর নামে অনেক প্রকল্প আছে। মেয়েরা এই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করে ভবিষ্যৎ তৈরি করবে। শুধু কন্যাশ্রীদের জন্যই এই বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি হবে। এই ৫৩ লক্ষ কন্যাশ্রী সদস্যকে এমনভাবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে যাতে তারা নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারে। এটাই তাদের স্বপ্নের ভোর হবে।’‌ এরপরেই মমতা জানিয়েছেন, রাজ্যে এখন ৫০ লক্ষ মেয়ে কন্যাশ্রীর আওতায় রয়েছে। তার বাইরে রয়েছে আরও ৩ লক্ষ। এতদিন যাদের পারিবারিক আয়ের ঊর্ধ্বসীমা ছিল বছরে দেড় লক্ষ টাকা তারাই কন্যাশ্রী প্রকল্পের সুবিধা পেত। মমতা এদিন সেই ঊর্ধ্বসীমা তুলে দেওয়ার ঘোষণা করে আরও বলেছেন, ‘‌এবার থেকে সব মেয়েরাই কন্যাশ্রীর সুযোগ পাবে। সব সিলিং তুলে দিলাম। এ জন্য আরও ২০০ কোটি টাকা খরচ হবে রাজ্যের। কিন্তু মেয়েদের ভবিষ্যতের কাছে এই টাকার অঙ্ক কিছুই নয়।’‌ স্বাধীনতা দিবসের ঠিক আগের দিন নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামে মমতার এই ঘোষণায় স্বভাবতই উচ্ছ্বসিত হয়ে ওঠে স্কুলপড়ুয়া, কন্যাশ্রীরা। অনুষ্ঠানে কন্যাশ্রী প্রকল্পের সফল রূপায়ণের জন্য আলিপুরদুয়ার, মুর্শিদাবাদ ও জলপাইগুড়ি জেলাকে পুরস্কৃত করা হয়। বিশেষ স্বীকৃতি দেওয়া হয় নদিয়া ও কোচবিহার জেলাকে। সেইসঙ্গে কলকাতার ৩টি কলেজ— বিবেকানন্দ, ভিক্টোরিয়া ইনস্টিটিউশন ও সুরেন্দ্রনাথ কলেজ ফর উইমেনসকে সেরা হিসেবে পুরস্কৃত করেন মুখ্যমন্ত্রী।‌

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

খবর এক নজরে…

No comments found

Sponsored~