খবর ২৪ ঘন্টা

হোয়াটসঅ্যাপে পাঠানো আইনি নোটিশকে বৈধতা দিল বম্বে হাইকোর্ট

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

সোশ্য়াল মিডিয়াকে এবার সম্মান দিল আদালত। স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার কার্ড পেমেন্ট ডিভিশনের দায়ের করা একটি মামলা শুনানির সময় বম্বে হাইকোর্ট এক যুগান্তকারী রায় দেন। বম্বে হাইকোর্ট শুক্রবার জানিয়েছে, হোয়াটস অ্যাপের মাধ্যমে পাঠানো কাউকে আইনি নোটিস যথেষ্ট গ্রহণযোগ্য। সরাসরি পাঠানো আইনি নোটিসের মতনই মেসেজের মাধ্যমে পাঠানো নোটিস ঠিক ততটাই মানবে কোর্ট।

মামলায় স্টেট ব্যাংক তাদের এক গ্রাহক রোহিত যাদবকে নোটিশ পাঠায় তাঁর হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে। চলতি মাসের আট তারিখে পাঠান সেই পিডিএফ ফাইল রোহিত যাদবের মোবাইল পৌঁছায় এবং তিনি সেই মেসেজ দেখেন। যা নীল টিক মারফত নিশ্চিত হয়। আদালতে এমনই জানিয়েছে স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার কার্ড বিভাগ।

রোহিত যাদবের বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি কিছুতেই ব্যাংক কর্তৃপক্ষের কোনও ফোন ধরছিলেন না। একই সঙ্গে ব্যাংকে এসে কোনও আধিকারিকের সঙ্গেও দেখা করছিলেন না। এরপরেই ব্যাংক কর্তৃপক্ষ এরপরেই আদালতের দ্বারস্থ হয়। তাঁকে পাঠানো পিডিএফ ফাইলে আদালতের শুনানির সময় এবং মামলার বিষয়েও উল্লেখ করা ছিল বলে জানিয়েছে স্টেট ব্যাংক অফ ইডিয়ার কার্ড বিভাগ।

এই বিষয়ে বিচারপতি গৌতম প্যাটেল বলেছেন, “এই মামলার ক্ষেত্রে হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে পাঠানো নোটিশকে বৈধতা দিতেই হচ্ছে। কারণ মেসেজের শেষে নিল টিক থেকে পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে যে প্রাপক ওই মেসেজ দেখেছে।” যদিও এই মামলার পরবর্তী তারিখ এবং অন্য একটি নোটিশ রোহিত যাদবের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার জন্য স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার কার্ড বিভাগকে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি গৌতম প্যাটেল।

সাধারণত নিয়ম অনুসারে, আইনি নোটিশ কোনও ব্যাক্তি মারফত বা ডাক বিভাগের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির কাছে পাঠানো হয়। যদিও তথ্য-প্রযুক্তি আইন চালু হওয়ার পর থেকে সেই আইনে কিঞ্চিত সংশোধন করা হয়েছে। ইমেইল বা ফোনে পাঠানো মেসেজকেও সেখানে বৈধতা দেওয়া হয়েছে। তবে হোয়াটসঅ্যাপের ক্ষেত্রে তেমন কিছু বিশেষ শোনা যায়নি।

বর্তমান সমাজে সোশ্যাল মিডিয়ার গুরুত্ব যে ক্রমাগত বাড়ছে তার একটা বড় প্রমাণ হচ্ছে দেশের বাণিজ্য নগরীর হাইকোর্টের এই রায়।

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...