বালাকোট নিয়ে ইতালিয় সাংবাদিকের দাবি নতুন করে উস্কে দিল বিতর্ক

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 425
    Shares

 

বালাকোটে জইশ ঘাঁটি লক্ষ্য করে মিরাজ ২০০০-র এয়ারস্ট্রাইক ঘীরে নানা মতামত উঠে এসেছে দেশি বিদেশি মিডিয়াতে। বিতর্ক ও কম হয়নি। সম্প্রতি ইতালিয় এক সাংবাদিকের দাবি ঘীরে উস্কে উঠেছে বিতর্ক। বোমাবর্ষণের পরই ঘটনাস্থল থেকে অন্তত ৩৫টি মৃতদেহ সরিয়ে ফেলেছিল পাক সেনা। মৃতদের মধ্যে ছিল জইশ জঙ্গি, প্রাক্তন পাক সেনাকর্তা এবং প্রশিক্ষণ নিতে আসা আত্মঘাতী ‘ফিদায়েঁ’ সদস্যরাও এমনটাই দাবি ইতালিয় সাংবাদিকের। ইতালীয় সাংবাদিক ফ্রান্সেসা মারিনো, এই রিপোর্ট প্রকাশ করেছেন ফার্স্ট পোস্টে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতানুযায়ী মারিনো জানিয়েছেন, ‘‘বোমাবর্ষণের পরই ঘটনাস্থলে পৌঁছেছিলেন স্থানীয় প্রশাসনের কর্তারা। পুরো এলাকা ঘিরে ফেলেছিল পাকিস্তানের সেনাবাহিনী। পুলিশকেও ঘটনাস্থলে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। অ্যাম্বুল্যান্স নিয়ে আসা স্বাস্থ্যকর্মীদের মোবাইল ফোনও কেড়ে নিয়েছিল পাক সেনাবাহিনী। পাক গোয়েন্দা সংস্থা ইন্টার সার্ভিসেস ইন্টেলিজেন্স (আইএসআই)-র প্রাক্তন অফিসার কর্নেল সেলিম নিহত হন এই অ্যাটাকে। গুরুতর আহত প্রাক্তন সেনাকর্তা কর্নেল জারার জাকরি। নিহত হয়েছেন জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ দিতে যাওয়া জইশ জঙ্গি মুফতি মইন। মারা গিয়েছে ইম্প্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস (আই-ই-ডি)ফেব্রিকেশনে বিশেষজ্ঞ উসমান গনি-ও। বালাকোটের জাব্বা টপের ঠিক নীচেই একটি কাঠ দিয়ে বানানো কাঁচা বাড়িতে ছিল জইশ শিবির, বাড়িতেই ছিলেন জইশের ফিদায়েঁ বাহিনীর ১২ জন সদস্য যারা বোমার আঘাতে নিহত হয়েছেন।”

Facebook Comments


শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 425
    Shares

খবর ২৪ ঘন্টা

খবর এক নজরে…

No comments found