খবর ২৪ ঘন্টা

পঞ্চায়েতে প্রার্থী বাছতে গাঁ উজাড় শাসক-বিরোধীর ~ গোষ্ঠী কোন্দল থেকেই ফায়দা তুলতে চাইছে রাজ্য বিজেপি

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

নিজস্ব প্রতিনিধি~ কে হবেন প্রার্থী? এটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন৷ মঙ্গলবারই প্রার্থী বাছাই নিয়ে বিবাদের জেরে গুলিবিদ্ধ হয়ে এক তৃণমূল কর্মীর মৃত্যু হয়েছে৷ তবে টানাপোড়েন অব্যাহত৷ একটি আসনের জন্য কার্যত মারামারি চলছে শাসক দল তৃণমূলের অন্দরে৷ বলা ভালো আসন একটা। কিন্তু প্রার্থীর দাবিদার পাঁচেরও বেশি! ফলে ত্রিস্তর পঞ্চায়েতে প্রার্থী বাছতে শাসক দলের নেতারা কার্যত খাবি খাচ্ছেন৷ টিকিট না পেলে অন্য দলে পা বাড়িয়েও রেখেছেন কেউ–কেউ। ফলে বিভিন্ন জেলায় রীতিমত বিপাকে তৃনমূল কংগ্রেস।

পুরুলিয়ায় শুধুমাত্র জেলাপরিষদে প্রার্থী হতে ৫০টির বেশি নাম জমা পড়েছে৷ নাম ভেসে আসছে রাজ্যস্তর থেকেও৷ ফলে চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা তৈরি করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন তৃনমূল জেলা নেতৃত্ব৷

শাসকদলের দাবি, বুথে–বুথে বৈঠক করে পঞ্চায়েতস্তরে প্রার্থী বাছাইয়ের কাজ চলছে। ইতিমধ্যেই প্রার্থীর বিষয়ে বিভিন্ন ব্লকের সঙ্গে একদফা বৈঠকও হয়েছে৷ কিন্তু লাভের লাভ কিছুই হচ্ছে না৷ যেসব জায়গায় ব্লক সভাপতি নেই, সেখানে পরিস্থিতি আরও জটিল৷

যদিও এদিন বৈঠক করে সব আসনে যাতে একটাই প্রার্থী হয় সেই বার্তা দিয়েছেন খোদ তৃণমূল নেত্রী৷ তবে তাঁর বার্তা কতটা কার্যকরী তা সময় বলবে৷

যদিও, দলের মধ্যে নেতারা বলছেন কোথাও কোনও কোন্দল নেই৷ তবে সত্যিটা চেপে রাখা দুস্কর হয়ে পড়েছে৷ পঞ্চায়েত ভোটের মনোনয়ন পত্র তোলাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়িয়েছে বীরভূমের বিভিন্ন ব্লকে৷ দুবরাজপুর, রামপুরহাট-১, ইলামবাজার, সিউড়ি-১ ব্লকের বিভিন্ন জায়গায় হাতাহাতি, মেরে মাথা ও কান ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে৷ প্রতিটি ক্ষেত্রেই অভিযোগকারী বিজেপি আঙুল তুলেছে তৃণমূলের দিকে৷ তৃণমূলের তরফে অবশ্য এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করা হয়েছে৷

এদিকে, পঞ্চায়েত ভোট প্রস্তুতিতে শাসক দলের গোষ্ঠী কোন্দল থেকেই ফায়দা তুলতে চাইছে রাজ্য বিজেপি। সব বুথে মনোনয়ন পেশের নির্দেশ দিয়েছেন মুকুল রায়। জয়ের বিষয়েও আশাবাদী তিনি৷ কিন্তু, সমস্যা রয়েছে গেরুয়া শিবিরেও৷ ছাপ্পান্ন হাজারের বেশি প্রার্থী পাওয়া যাবে তো? উত্তরের খোঁজে রয়েছে তারা৷

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...