বিপাকে প্রাক্তন সিবিআই অধিকর্তা রাকেশ আস্থানা

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 8
    Shares

বড়সড় বিপদে প্রাক্তন সিবিআই অধিকর্তা৷ প্রাক্তন সিবিআই অধিকর্তা রাকেশ আস্থানার পিটিশন খারিজ হয়ে যায় দিল্লি হাইকোর্টে৷ পাশাপাশি এই তদন্ত আগামী ১০ সপ্তাহের মধ্যে শেষ করে ফেলার নির্দেশও দিয়েছে আদালত। প্রসঙ্গত, এই মামলায় আস্থানা–সহ চারজনের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হয়েছিল। এই মামলায় দিল্লি হাইকোর্টে নিজের বয়ানও জানিয়েছিলেন অপসারিত সিবিআই অধিকর্তা অলোক বর্মা। রাকেশ আস্থানা–সহ বাকিদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৭, ১৩(‌২)‌, ১৩(‌১)‌(‌ডি)‌ ধারায় মামলা রুজু হয়েছিল। এছাড়াও দুর্নীতি দমন আইনের ৭এ ধারায় মামলা রুজু হয়েছিল।‌‌
পিটিশন খারিজ হয়ে যাওয়ার অর্থ ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে তদন্ত করতে আর কোনও বাধা রইল না। মইন আখতার কুরেশি নামে দুবাইয়ের এক মাংস বিক্রেতার ঘনিষ্ঠ হায়দরাবাদের গরচিরৌলির বাসিন্দা সতীশ বাবু সানার কাছ থেকে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে খোদ বিশেষ অধিকর্তার বিরুদ্ধেই তদন্ত শুরু করেছিল সিবিআই। এর আগে সিবিআই সূত্রে সতীশের যে অভিযোগ সামনে এসেছিল, তাতে দেখা গিয়েছিল মইনের সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক রাখার জন্য তাকে হেনস্থা করে টাকা আদায় করতেই অভিযুক্ত রাকেশ আস্থানা ও তার দলবল এই কাণ্ড ঘটিয়েছেন। ২০১৭ সালের ১৭ অক্টোবর থেকে মোট ৭ বার নোটিস পাঠিয়ে দফায় দফায় টাকা চাওয়া হয়েছে। যদিও প্রতিবারেই দেবেন্দ্র কুমার একই উত্তর পেয়েছেন সতীশের কাছে। এছাড়াও তদন্ত শুরু হয় দুই ভাই মনোজ ও সোমেশ প্রসাদের বিরুদ্ধেও। অভিযোগ, এদের মাধ্যমেই রাকেশ আস্থানা টাকা নিয়েছিলেন। এরপরই তিনি দিল্লি হাইকোর্টে এই মামলা বন্ধের জন্য পিটিশন দায়ের করেছিলেন। কিন্তু আদালত এদিন সেই পিটিশনটি খারিজ করে দিল। বলা হয়েছিল সতীশ মোট ৪ দফায় টাকা দিয়েছেন। প্রথমে ১ কোটি। এরপর ১ কোটি ৯৫ লক্ষ, তারপর ২৫ লক্ষ এবং শেষে মোট ৫৫ হাজার দিরহাম (‌ভারতীয় মুদ্রায় ১৫ লাখের কাছাকাছি)‌।

Facebook Comments


শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 8
    Shares

খবর ২৪ ঘন্টা

খবর এক নজরে…

No comments found