ছত্তিশগড়ে মাওবাদী হামলার খবর কি আগেই জানতেন গোয়েন্দারা !! উঠছে প্রশ্ন…

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 907
    Shares

হামলা হতে পারে বলে আগেই খবর এসেছিল, তবে তা সত্ত্বেও প্রাণহানি আটকানো গেল না. ছত্তিশগড়ে মাওবাদী হামলায় 9 জন সিআরপিএফ জওয়ান মারা যাওয়ার ঘটনার পর এই তথ্যই সামনে এসেছে.

জানা গিয়েছে, 45 পৃথক পৃথক সূত্র মারফত এই হামলার খবর এসেছিল সিআরপিএফের কাছে. কিন্তু কোনও গুরুত্ব দেওয়া হয়নি সূত্রগুলিকে. যার ফল 9জন সিআরপিএফ জওয়ানের প্রাণহানি. গোপন সূত্রে খবর ছিল বিস্ফোরণস্থল থেকে 10 কিমি পরিধির মধ্যেই ঘাঁটি গেঁড়েছে মাওাবাদীরা. তাদের লক্ষ্য বড়সড় বিস্ফোরণ ঘটানো. এটাও বলা হয়েছিল কিস্তারাম ও পালোডির মাঝেই আস্তানা তৈরি করেছে মাওবাদীরা. গত তিন মাসে বেশ কযেকবার এই তথ্য গোযেন্দা মারফত আসে. তবু নড়েচড়ে বসার প্রয়োজন মনে করেননি শীর্ষ কর্তারা.

Image result for crpf chief in chhattisgarh

রাজ্য গোয়েন্দা দফতর বা স্টেস ইনটেলিজেন্স ব্যুরো চিঠি লিখে এই আশঙ্কার কথা জানিয়েছিল রাজ্য প্রশাসনকে. কোনও গাড়ি নিয়ে টহলদারিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করার আবেদন জানানো হয়েছিল. কারণ এবার মাওাবাদীদের টার্গেট এই টহলদারি গাড়িগুলি বলে জানানো হয়. তবে লাভ হয়নি.

সঠিক সময়ে উপযুক্ত সমন্বয়ের অভাবেই প্রাণ হারিয়েছেন এতজন জওয়ান বলে অভিযোগ করছে গোয়েন্দা দফতর.

প্রসঙ্গত, দিন তিনেক আগেই ছত্তিশগড়ে গাড়ি বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আধাসামরিক বাহিনীর নয় জওয়ানকে হত্যা করে মাওবাদীরা। গাড়ির নিচে রাখা বিস্ফোরক ডেটোনেট করে তাদের হত্যা করা হয় বলে খবর.

Image result for maoist attack in chhattisgarh

এই বিস্ফোরণে আধাসামরিক বাহিনীর আরো তিন সদস্য আহত হন। চিকিৎসার জন্য আহতদের রাইপুরে নিয়ে যাওয়া হয়.

দীর্ঘ কয়েক দশক ধরেই মাওবাদী সন্ত্রাসে উত্তপ্ত ছত্তিশগড়. স্থানীয় আদিবাসীদের জমি, কর্মসংস্থান ও অন্যান্য অধিকারের দাবি নিয়ে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে তাদের জেহাদ. এই হামলায় এখন পর্যন্ত কয়েক লাখ মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে।

ভারতের অন্তত ২০টি রাজ্যে মাওবাদীদের উপস্থিতির কথা জানা গেলেও ছত্তিশগড়, উড়িষ্যা, বিহার, ঝাড়খণ্ড ও মহারাষ্ট্রে তাদের সক্রিয়তা বেশি।

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 907
    Shares

খবর এক নজরে…

No comments found

Sponsored~

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.