দুটি এক্সপ্রেসওয়ের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী…

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 22
    Shares

ওয়েব ডেস্কঃ দিল্লি লাগোয়া পশ্চিম উত্তর প্রদেশে দেশের প্রথম ১৪ লেনের হাইওয়ের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সাধারণ মানুষের জন্য খুলে গেল ইস্টার্ন পেরিফেরল এক্সপ্রেসওয়ে ও দিল্লি-মীরঠ এক্সপ্রেসওয়ে৷ এদিন সকালে নিজামুদ্দিন – রিং রোডে মোড়ে নতুন সড়কের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। তাঁর সঙ্গে ছিলেন কেন্দ্রীয় সড়ক ও পরিবহণ মন্ত্রী নীতীন গডকড়ি। ছিলেন দিল্লির ৭ সাংসদ। এর পর পটপড়গঞ্জ ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় সাত কিলোমিটার পথ রোড শো করেন প্রধানমন্ত্রী। ফেরেনও ওই পথ দিয়েই। নিজামুদ্দিন সেতুর সম্প্রসারণ করে তৈরি দিল্লি-মীরঠ এক্সপ্রেসওয়ে৷ দিল্লি থেকে মীরঠের দূরত্ব এখন ৪ ঘণ্টা কমে ৪৫ মিনিট৷ এই এক্সপ্রেসওয়ের মাধ্যমে দিল্লি থেকে মাত্র ৪৫ মিনিটে মীরঠ পৌঁছনো যাবে৷ এক্সপ্রেসওয়ে উদ্বোধনে উপস্থিত ছিলেন পরিবহনমন্ত্রী নীতিন গডকড়ি৷ তাঁকে সঙ্গে নিয়ে হুড খোলা জিপে রোড শো করলেন প্রধানমন্ত্রী৷ এক্সপ্রেসওয়ের উপর প্রধানমন্ত্রীর রোড শো দেখতে ভিড়ও জমে৷

শুধু দিল্লি নয়, দিল্লি-মীরঠ এক্সপ্রেসওয়ের সুবিধা পাবেন উত্তরপ্রদেশ,উত্তরাখণ্ড থেকে আসা যাত্রীরাও৷ কারণ, দিল্লি-উত্তরপ্রদেশের মূল সংযোগ সেতু নিজামুদ্দিন৷
প্রায় ৩০ মিনিট সময় কড়া রোদে হুডখোলা গাড়িতে মানুষের অভিনন্দন গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী।৯৬ কিলোমিটার দীর্ঘ দিল্লি – মেরঠ হাইওয়ে দেশের প্রথম ১৪ লেনের সড়ক। এই সড়কে বিদ্যুত্ সাশ্রয়ের জন্য রয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। তাই গ্রিন হাইওয়ে নাম দেওয়া হয়েছে এই সড়কের। মোট ৮৪১ কোটি টাকা খরচে তৈরি হয়েছে এই সড়ক। যমুনা সেতুর ওপর এই সড়কের দু’ধারে বসানো হয়েছে সোলার প্যানেল। সেতুর ওপর থাকবে দেওয়াল বাগিচা ও জল সাশ্রয়কারী সেচ। নিজামুদ্দিন থেকে গাজিয়াবাদের মধ্যে ১২ লেনে চলাচল করবে গাড়ি। এর মধ্যে ৮টি লেন ব্যবহৃত হবে হাইওয়ে হিসাবে। এক্সপ্রেসওয়ের দু’পাশে ২.৫ মিটার চওড়া সাইকেল চালানোর সড়ক ও ১.৫ মিটার চওড়া ফুটপাথ রয়েছে। ৫০০ দিনে শেষ হয়েছে এই প্রকল্পের কাজ। এই সড়ক চালু হওয়ায় দিল্লি ও পশ্চিম উত্তর প্রদেশের মধ্যে যোগাযোগ সুগম হবে। গোটা প্রকল্প রূপায়িত হলে মোট ৩১টি ট্রাফিক সিগনালের বাধা থেকে মুক্তি পাবে সাধারণ মানুষ।

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 22
    Shares

খবর এক নজরে…

No comments found

Sponsored~