অনিল আম্বানির বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 54
    Shares

অনিল আম্বানির বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে গেল সুইডেনের টেলিকম সরঞ্জাম প্রস্তুতকারক সংস্থা এরিকসন ইন্ডিয়া প্রাইভেট লিমিটেড। বকেয়া টাকা না মেটানোয় এই পদক্ষেপ তাঁদের৷ সুদসমেত পুরো টাকা মেটাতে রাজি না হলে অনিল আম্বানি ও সংস্থার দুই কর্তাকে গ্রেপ্তার করে সিভিল জেলে রাখার আবেদন জানিয়েছে এরিকসন। ২০১৪ সালে দুই সংস্থার মধ্যে ৭ বছরের একটি চুক্তি হয়, যাতে সারা দেশে রিলায়েন্সের টেলিকম নেটওয়ার্ক সামলানোর ভার হাতে পায় এরিকসন। কিন্তু ২০১৪ থেকে তাদের পাওনা ১৫০০ কোটি টাকা মেটানো হয়নি বলে গতবছর ন্যাশনাল কোম্পানি ল অ্যাপিলেট ট্রাইব্যুনালে যায় এরিকসন। সেখান থেকে মামলা যায় সুপ্রিম কোর্টে। ঋণের দায়ে ধুঁকতে থাকা রিলায়েন্স কমিউনিকেশন এবার মিটমাটের চেষ্টায় যায়। ১৫০০ কোটির বদলে ৫৫০ কোটিতে বিষয়টি মিটিয়ে নিতে রাজি হয়। ৩০ মে–‌র আদালত নির্দেশ দেয়, ১২০ দিনের মধ্যে রিলায়েন্স কমিউনিকেশনকে টাকা মেটাতে হবে। তার জন্য ৩ আগস্ট রিলায়েন্সকে ২৫ হাজার কোটি টাকার সম্পত্তি বিক্রিতেও অনুমতি দেওয়া হয়। কিন্তু সম্পত্তি বিক্রি করলেও বকেয়া মেটায়নি অনিল আম্বানির সংস্থা। ফের আদালতের দ্বারস্থ হন এরিকসন কর্তৃপক্ষ। ২০১৮-র ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যেই সুদ–সহ টাকা মিটিয়ে দিতে হবে বলে জানায় শীর্ষ আদালত। তার পরও পাওনা মেটায়নি অনিলের সংস্থা।
বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কাছেও গিয়েছে এরিকসন, যাতে দেশের বাইরে পা রাখতে না পারেন অনিল আম্বানি, রিলায়েন্স টেলিকম লিমিটেডের চেয়ারম্যান সতীশ শাহ এবং রিলায়েন্স ইনফ্র্যাটেল লিমিটেডের চেয়ারপার্সন ছায়া ভিরানি। বকেয়া না মেটানোয় তাদের অভিযোগ, গতবছর ২৩ অক্টোবর এরিকসনের প্রাপ্য ৫৫০ কোটি টাকা মিটিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল শীর্ষ আদালত। কিন্তু আদালতের নির্দেশের অবমাননা করেছে রিলায়েন্স কমিউনিকেশন লিমিটেড (আরকম)। আরকম–‌এর সঙ্গে এরিকসনের বেশ কিছুদিন ধরেই গোলমাল চলছে।

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 54
    Shares

খবর এক নজরে…

No comments found

Sponsored~