শহর কাঁপাচ্ছে ডার্ক ওয়েব, চিন্তায় গোয়েন্দারা

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 3
    Shares

মাদক পাচারকারীদের বড় ভরসা ডার্ক ওয়েব৷ এখন প্রশ্ন, কী এই ডার্ক ওয়েব? পুলিশ জানিয়েছে, কলকাতা-সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় কোকেন, এলএসডি-র মতো মাদক পাচার করার জন্য এই ডার্ক ওয়েবের সাইটগুলি ব্যবহার করা হয়৷ এই পদ্ধতি পাচারকারীদের জন্য অনেক নিরাপদ বলে মনে করা হয়৷ কারণ এই পদ্ধতিতে ক্রেতা ও বিক্রেতা কেউ কাউকেই চেনে না। টাকার লেনদেন হয় ‘বিটকয়েন’-এ। তার জন্য ক্রেতাকে অনলাইনে ‘বিটকয়েন’ কিনতে হয়। প্রাপ্য ‘বিটকয়েন’ হাতে পেলেই বিশেষ কুরিয়র সার্ভিসের মাধ্যমে চলে আসে বিদেশি মাদক। শুধু সাইটের পক্ষে ক্রেতাকে কিছু প্রশ্ন করা হয়। ক্রেতার সম্পর্কে কিছু জানারও চেষ্টা হয়। সন্তোষজনক উত্তর পেলেই কেনাবেচা নিয়ে কথা হয়। কী ধরনের মাদক কতটা পরিমাণ ক্রেতা কিনতে চায়, তা জানতে চাওয়া হয়।
লালবাজারের গোয়েন্দাদের মতে আফ্রিকা থেকে দিল্লিতে বিদেশি মাদক নিয়ে আসা হয়েছে ‘ডার্ক ওয়েব’-এর মাধ্যমে। এই পদ্ধতিতে পাচারের পিছনে যে ব্যক্তিটি রয়েছে, সে দিল্লির বাসিন্দা বলে জানতে পেরেছেন গোয়েন্দারা। সম্প্রতি বিমানবন্দরের বাইরে ২৫ গ্রাম কোকেন-সহ গোয়েন্দা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয় নাইজেরীয় যুবতী ওকুসান ক্রিস্টিয়ানা। তাকে জেরা করে কলকাতার মাদক চক্রের এজেন্ট তারই পরিচিত নাইজেরীয় দুই ফুটবলার ও নাইট ক্লাবের দুই ডিজে-র খোঁজ মিলেছে। তাদের সন্ধানে চলছে তল্লাশি।
সুত্রের খবর, চলতি সপ্তাহে এয়ারপোর্ট থেকে ধৃত এই নাইজেরিয় মহিলাকে জেরা করে শহরে মাদক পাচারের গতি-পথ প্রসঙ্গে বেশ কিছু তথ্য উঠে এসেছে তদন্তকারিদের হাতে৷ তবে সে পথের পাশাপাশি শহরের মাদক ক্রেতাদের সন্ধান শুরু করেছে পুলিশ৷ তদন্তে আগেই শহরের একাধিক নাইট ক্লাব ও ডিজেদের নাম খুঁজে পেয়েছিল পুলিশ৷ এবার শহরের ফুটবলারদের নামও মাদকাসক্তদের তালিকায় যুক্ত হল৷

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 3
    Shares

খবর এক নজরে…

No comments found

Sponsored~