গাফিলতির জেরে একই দিনে তিন রোগীর মৃত্যু~ অভিযুক্ত তিন নামজাদা হাসপাতাল…

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

ওয়েব ডেস্কঃ  একই দিনে শহরের তিন তিনটি  নামজাদা বেসরকারি হাসপাতালের বিরুদ্ধে চিকিৎসাক্ষেত্রে উঠে এল চরম গাফিলতির অভিযোগ। অ্যাপোলো- উড্ল্যা‌ন্ডস্‌- আমরি ~ মহানগরীর ৩ প্রান্তের এই ৩ টি হাসপাতাল একই দিনে মানুষ মারার কল হিসেবে নিজেদের চিহ্নিত করল। তদন্তে আজউঠে এল এমনই চাঞ্চল্যকর দৃশ্য।

 ১ম দৃশ্য…

গাফিলতির জেরে রোগী মৃত্যুর  দোষী অ্যাপোলো হাসপাতাল। ঘটনার পরই গোটা  হাসপাতালে ছড়িয়েছে উত্তেজনা। নিজস্ব সূত্র অনুযায়ী, শ্বাসকষ্ট জনিত করণে আজ সকালে  কসবার বাসিন্দা  অলোক দাস নামে এক ব্যক্তিকে হাসপাতালে পরিবারের লোক নিয়ে আসে চিকিৎসার জন্য । কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এমার্জেন্সিতে বেড নেই বলে চিকিৎসার দায়িত্ব এড়িয়ে যায়। উপরন্তু, দেড় ঘণ্টারও বেশী সময় ধরে অ্যাম্বুলেন্সেই পড়ে থাকেন অলোকবাবু । ফলে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন ৫৪ বছরের ওই প্রৌঢ়। এরপরই  হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়েন রোগীর বাড়ীর লোকজন। ফুলবাগান থানায় এই বিষয়ে দায়ের করা হয়েছে লিখিত অভিযোগ । 

 

Serious allegations of clinical negligence against three reputed private hospitals in Kolkata

২য় দৃশ্য…

চরম গাফিলতির  ২য় ঘটনাটি ঘটে দক্ষিণ কলকাতার ঝাঁ-চকচকে নামী বেসরকারি হাসপাতাল উড্‌ল্যান্ডস্‌ হাসপাতালে। মৃতের নাম গৌতম পাল, বয়েস ৩২। হাওড়ার সলকিয়ার বাসিন্দা গৌতমবাবু গত ১৫ই জানুয়ারি মা উড়াল্পুলে পথ দূর্ঘটনার শিকার হন এবং হাত ও পায়ে  চোট নিয়ে উড্‌ল্যান্ডসে্‌ ভর্তি হন। সূত্রের খবর, মঙ্গলবার রাতেও  পরিবারের আত্মীয়রা স্থিতিশীল অবস্থায় গৌতম বাবুকে দেখে বাড়ী ফেরেন। এমনকি, ভিডিও কলের মাধ্যমে বন্ধুদের সাথে কথা বলেন তিনি।মোটের ওপর সবই ঠিক ঠাক চলছিল, কিন্তু বিনা মেঘে বাজের মতো  কিছুক্ষণের মধ্যেই হাসপাতাল থেকে গৌতম পালের মৃত্যুসংবাদ জানানো হয় বাড়িতে। এছাড়া  আরও বড় চাঞ্চল্যকর অভিযোগ মৃত রোগীর বাড়ীর তরফে করা হয়, তাঁদের কিছু না জানিয়েই বুধবার সকালে দেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের পিছনের গেট দিয়ে এসএসকেএম হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছিল।পুরো ব্যাপারটি আঁচ করতে পেরেই পরিবারের লোক পিছু ধাওয়া করেন এবং আলিপুর রোডের উপরে মৃতদেহ বহনকারী গাড়িটিকে ধরে ফেলেন। প্রায় আধ ঘন্টা  দেহ নিয়ে আলিপুর রোড অবরোধ করে রাখেন তাঁরা এবং পরবর্তিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আলিপুর থানায় লিখিত অভিযোগ জানানোর পরই অবরোধ তোলেন মৃতের আত্মীয় পরিজনেরা। পুরো ঘটনার জেরে উত্তাল হয়ে ওঠে উড্ল্যা‌ন্ডস্‌ চত্তর।

৩য় দৃশ্য…

গত রবিবার প্রবল শ্বাসকষ্ট ও জ্বর নিয়ে, চরম সঙ্কটজনক অবস্থায় গড়িয়া কামালগাজির বাসিন্দা দু’বছরের শিশু ঐত্রেয়ী দে-কে  মুকুন্দপুরের আমরি হাসপাতেলে নিয়ে আসে পরিবার। পরিবারের অভিযোগ, আজ ভোরের দিকে হঠাৎই শিশু কন্যাটির শ্বাসকষ্ট এবং বমি শুরু হয়।  চাঞ্চল্যকর তথ্য অনুযায়ী, মূলতঃ  একটি অ্যান্টিবায়োটিক ইঞ্জেকশন দেওয়ার পরই তার অবস্থার অবনতি হয়। শুরু হয় খিঁচুনি,  প্রয়োজন পড়ে অক্সিজেনের। কিন্তু হাসপাতালে ভর্তি থাকা সত্ত্বেও সঠিক সময়ে  জুটল না অক্সিজেন।  যতক্ষণে অক্সিজেনের ব্যবস্থা হয়, ততক্ষণে ঐত্রেয়ীর মৃত্যু ঘটে। এরপরই ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় গোটা হাসপাতাল জুড়ে। পূর্ব যাদবপুর থানায় আমরির হাসপাতালের বিরুদ্ধেঅভিযোগ দায়ের করেছে শিশুর পরিবার, যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সেই অভিযোগ পুরোদমে খারিজ করেছে।

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

খবর এক নজরে…

No comments found

Sponsored~

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.