খবর ২৪ ঘন্টা

হোলির রঙ ঘরোয়া উপায়ে সহজে তুলে ফেলার রইল কিছু সহজ টিপস্‌…

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

web Desk:  হোলি হল ভারতের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি উৎসব যা মানুষকে শুধুমাত্র মনে নয়, বাহ্যিক দিক থেকেও রঙিন করে তোলে। রঙ খেলার আগে নিজেকে যথেষ্টভাবে প্রস্তুত করে তার পরেই বিভিন্ন ধরনের ভেষজ এবং রাসায়নিক রঙ নিয়ে হোলি খেলা উচিত। আপনি যদি হোলি উদযাপন করতে চান রং খেলে, তাহলে আপনাকে অবশ্যই নিজের ত্বককে রক্ষা করার জন্য বেশ কিছু সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে এবং রঙ খেলার পরেও রং যাতে বেশিক্ষণ না থাকে এবং সহজে তুলে ফেলা যায়, তার জন্য যথেষ্ট পরিমাণে ত্বক পরিচর্যার প্রয়োজন।

হোলি খেলার আগে কিছু সাবধানতা…

অতি অবশ্যই যথেষ্ট আরামদায়ক এবং লম্বা পোশাক পরতে হবে যাতে সেটি আপনার শরীরকে যতটা সম্ভব ঢেকে রাখে। নারকেল তেল মুখে হাতে এবং শরীরের অন্যান্য অংশে বিশেষ করে শরীরের অনাবৃত অংশে অবশ্যই প্রয়োগ করতে হবে। নারকেল তেল ছাড়াও সর্ষের তেল বা অলিভ অয়েল মাখা যায়। শরীরের যে সমস্ত অংশ ঢাকা পড়েনি সেই সমস্ত অংশে দুবার বা তিনবার করে তেলের প্রলেপ দিতে হবে। এর ফলে অতি সহজেই রঙ ধুয়ে ফেলা যায়।

হোলি খেলার পরে রং তোলার কিছু টিপস…

১.প্রথমে নিজের ত্বক ভালো করে ঠান্ডা জলে ধুয়ে নিন। এরপরে খুব আস্তে রঙ তুলে ফেলুন হালকা হাতে ঘষে। গায়ে যেহেতু আগের থেকেই তেল লাগানো আছে তাই অতি সহজেই সমস্ত রঙ উঠে যাবে।

২.যদি সমস্ত রং এতে উঠে না যায় তাহলে দাগের ওপরে একটু পাতিলেবু ঘষে নিন। এতে রংয়ের দাগ সম্পূর্ণভাবে উঠে যাবে। পাতিলেবু হল ভেষজ ন্যাচারাল ব্লিচিং যাতে যেকোনো ধরনের দাগ অতি সহজেই উঠে যায়। পাতিলেবু লাগাবার পরে 15 মিনিটের জন্য ওই অবস্থায় ত্বককে রেখে দিন। ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন।

৩. ক্লিনজিং মিল্ক বা ক্লিনজারও ব্যবহার করা যায়।

৪. ঈষদুষ্ণ জলে চান করুন এবং হালকা ময়েশ্চারাইজারযুক্ত সাবান ব্যবহার করুন। জোর করে অতিরিক্ত ঘষে কখনোই রং এর দাগ তোলার চেষ্টা করবেন না। এর ফলে ত্বক আর্দ্রতা হারাতে পারে এবং নানান ধরনের স্কিন ইনফেকশন হতে পারে।

৫. যদি আপনি আপনার মুখ থেকে তেল রং তুলে ফেলতে চান, তাহলে নারকেল তেল অথবা সর্ষের তেল ব্যবহার করুন। তেল মুখে ব্যবহারের জন্য তুলো ব্যবহার করুন। দুই হাত দিয়ে খুব হালকাভাবে ঘষে রং তুলে ফেলুন।

৬.যদি আপনি আপনার মুখ থেকে আবির বা গুলাল ধরনের কোনো শুষ্ক রং তুলে ফেলতে চান, তাহলে কখনোই জল ব্যবহার করবেন না। জল ব্যবহার করলে ওই শুকনো আবির আপনার সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে এবং শুধুমাত্র আপনাকে আরো বেশি চিটচিটে করে তোলে। আবির সরাবার জন্য হালকা হাতে কোন শুকনো কাপড় দিয়ে প্রথমে নিজের মুখ পরিষ্কার করে নিন এবং জল একমাত্র তখনই ব্যবহার করবেন যদি কোনোভাবেই আবির পরিষ্কার করা না যায়।

৭. নিজের চুল থেকে রং তুলে ফেলতে হলে কোন হালকা হার্বাল শ্যাম্পু অথবা ঘরে তৈরি কোন শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। শিকাকাই, রিঠা এবং আমলা সারারাত ধরে ভিজিয়ে রেখে পরের দিন সকালে ঐগুলিকে সিদ্ধ করে হাত দিয়ে কচলে নিলেই ঘরোয়া শ্যাম্পু প্রস্তুত হয়ে যায়। যদি আপনি আগে মাথায় ভালো করে তেল মেখে থাকেন তাহলে ঐ রং তুলে ফেলতে কষ্ট হয়না।

৮. মাথার চুলে লেগে থাকা রং তুলে ফেলতে অসুবিধা হলে পাতি লেবুর রসের সাথে টকদই মিশিয়ে একটি ব্যাটার তৈরি করে সেটিকে মাথায় লাগিয়ে রাখুন। 15 মিনিট পরে ভালো করে সেটি ধোবার জন্য কোন ভেষজ শ্যাম্পু অথবা উপরোক্ত পদ্ধতিতে বর্ণিত ঘরোয়া শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।

৯. বিভিন্ন ধরনের ফেসপ্যাক ব্যবহার করেও আপনি আপনার মুখের রং তুলে ফেলতে পারেন সেই সম্পর্কে কিছু বর্ণনা দেয়া হল…

শুষ্ক ত্বকের জন্য ফেসপ্যাক–

এক চামচ আমন্ড পাউডার, এক চামচ মধু, দু তিন ফোঁটা পাতিলেবুর রস এবং অল্প দুধ দিয়ে একটি ফেসপ্যাক তৈরি করুন। এরপর এই ফেসপ্যাকটি নিজের মুখে মেখে কুড়ি মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর হাতে জল নিয়ে হালকা হাতে রগড়প ফেসপ্যাকটি ধুয়ে ফেলুন। এই ফেসপ্যাকটি আপনার মুখের সকল দাগ তোলার সাথে সাথে মুখ পরিষ্কার এবং মুখের ত্বক নরম করে।

তৈলাক্ত ত্বকের জন্য ফেসপ্যাক —

এক চামচ মসুর ডাল, শুকনো কমলালেবুর খোসা, এক চামচ গোলাপজল, দুই তিন ফোঁটা পাতিলেবুর রস দিয়ে একটি ফেসপ্যাক তৈরি করে সেটি মুখে লাগান। যখন এই ফেসপ্যাকটি সম্পূর্ণভাবে শুকিয়ে যাবে তখন সেটি জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

মনে রাখবেন বারংবার কখনোই মুখ জল দিয়ে ধোবেন না। এতে আপনার মুখের ত্বক তাড়াতাড়ি শুষ্ক হয়ে যায়। মুখের ত্বকে কোন শক্ত কিছু দিয়ে অতিরিক্ত পরিমাণ ঘষাঘষি একদম করবেন না। এর ফলে আপনার মুখের ত্বকে চুলকানি হতে পারে। বরং অল্প তুলোয় নারকেল তেল দিয়ে সেটি মুখে মেখে হালকা হাতে ঘষে মুখের রং তুলে ফেলুন।

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...