খবর ২৪ ঘন্টা

জানেন কি, শুধুমাত্র নিষিদ্ধ বই দিয়ে তৈরী হয়েছে এক বিশাল স্থাপত্য …

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

নাৎসিদের পুড়িয়ে দেওয়া নিষিদ্ধ বইগুলির জায়গায় সেই বইগুলির দ্বারা নির্মিত ‘পার্থেনন’

মধ্য জার্মানিতে গ্রীক স্টাইলের মন্দিরের আদলে তৈরী একটি স্থাপত্য যা নিষিদ্ধ বিভিন্ন নাৎসি বই দিয়ে প্রস্তুত।বইগুলি পোড়ানোর বিষয়ে সাইটে সেন্সরশিপের মধ্যে দিয়ে বিতর্ক শুরু করতে চায়।

এটি এথেন্সের অ্যাক্রোপলিসে অবস্থিত একটি মন্দিরের স্মৃতিসৌধের মত অনেকটা দেখতে।সেন্ট্রাল জার্মানিতে অবস্থিত এই স্থাপত্যটি মার্বেল দ্বারা নির্মিত নয়, নিষিদ্ধ বইগুলির দ্বারা নির্মিত।

“দ্য পার্থেনন অফ বুকস” এই বছরের শ্রেষ্ঠ ডকুমেন্টারি প্রদর্শনী – ক্যাসেলের বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতি পাঁচ বছরে একবার আভ্যন্তরীণ সমসাময়িক আর্ট শো হয়, যেখানে এটি প্রদর্শিত।

আর্জেন্টিনার শিল্পী মার্টা মিনুজিনের কাজটি সব ধরণের সেন্সরশিপের বিরুদ্ধে একটি আবেদন।
দক্ষিণ আমেরিকার পপ আর্ট আইকন মিনুজিন এটিকে তাঁর সব কাজগুলির মধ্যে “সবচেয়ে রাজনৈতিক” “the most political” হিসাবে বর্ণনা করেছেন।

মার্টা মিনুজিন তাঁর বানানো পার্থেননের সামনে

 

প্রকৃতপক্ষে,”দ্য পার্থেনন অফ বুকস”সেই স্থানে নির্মিত, যেখানে 1933 সালে, ইহুদি বা মার্কসবাদী লেখকদের বইয়ে নাৎসিরা আগুন লাগিয়ে দিয়েছিল।

বিগত আট দশক ধরে যত দ্রুত সম্ভব, শক্ত টুপি পরিহিত স্বেচ্ছাসেবকদের একটি দল একটি ক্রেনের পাদদেশে আরো বই জড়ো করার প্রস্তুতি নিচ্ছে যাতে সেগুলিও ব্যবহার করা যায়।

আলেকজান্ডার সলঝেনিৎসিনের “প্রথম বৃত্ত””the first circle”বইটির একটি কপি নিজের জায়গা খুঁজে পাবে, 46 টি ধাতু গ্রিল দ্বারা গঠিত থামগুলির একটিতে, যেটি অন্য সব বই দিয়ে ঢাকা রয়েছে।

রাশিয়ান লেখক এর উপন্যাস “বাইবেল”,”দ্য স্যাটানিক ভার্সেস”,”দ্য অ্যাডভেঞ্চার অফ টম সয়ার” এবং “দ্য লিটল প্রিন্স”বেস্টসেলার হিসাবে ছিল এবং এখানে রয়েছে।

170 টি শিরোনামের 1,00,000 টি কপি থামগুলিকে ঢেকে রাখবে, যেগুলি প্রতিটি আলাদাভাবে একটি প্লাস্টিকের ব্যাগের মধ্যে আবৃত, যা জার্মানের আবহাওয়ার থেকে বইগুলিকে রক্ষা করবে।

“কর্মক্ষেত্রটি পার্থেনন তৈরীর উপযুক্ত সাইজের -70 মিটার (230 ফুট) দৈর্ঘ্য, 31 মিটার চওড়া এবং 10 মিটার উঁচু।” একজন ডকুমেন্টার কিউরেটর পিয়ের বাল-ব্লাঙ্কে এই তথ্য এ এফ পি কে জানান।

ফ্রেঞ্চম্যান বলেন, ফ্রীড্রিসাসপ্লাটে শিল্প স্থাপনের একটি “সামান্য ঢালযুক্ত অভিযোজন রয়েছে যা এটিকে আরও চিত্তাকর্ষক উপস্থিতি প্রদান করে, কারণ এর ফলে আপনি একটি সম্মুখস্থ দৃশ্যের পরিবর্তে পার্শ্বস্থ দৃশ্যপট দেখতে পান।”

2012 সালে 9,05,000 মানুষ আকৃষ্ট হন ডকুমেন্টারি সংস্করণটির জন্য। একই সময়ে এথেন্সের অন্য শহরেও এই ডকুমেন্টারি অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

8 ই এপ্রিল থেকে, গ্রিক রাজধানী তার ভূগর্ভস্থ শিল্পের প্রদর্শনী, কনসার্ট, চলচ্চিত্র এবং ডকুমেন্টারির সাথে সম্পর্কিত পারফরমেন্সে ব্যস্ত হয়েছে।

10 জুন থেকে, বাণিজ্যিকীকরণে অস্বীকার করার জন্য বিচিত্র ও যুগান্তকারী শো আবার ফিরে আসে এর জন্মভূমি রাসেলে 160 জন আর্টিস্টকে নিয়ে, 17 ই সেপ্টেম্বর জন্য পর্যন্ত।

“বইয়ের পার্থেনন” এর প্রস্তুতি শুরু হয়েছিল, যখন মিনুজিন 1,00,000 বই সংগ্রহের জন্য একটি আবেদন করেছিলেন।

কাসেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ঊনিশজন শিক্ষার্থীও নিষিদ্ধ 70,000 বইয়ের একটি তালিকা তৈরি করতে সাহায্য করেছে, যা দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবিরোধী প্রোটেস্ট্যান্ট সংস্কারের 500 বছর আগের ইতিহাস বর্ণনা করে — ইতিহাসবিদ ফ্লোরিয়ান গাস্নার বলেন।

কোন শিরোনাম বৈশিষ্ট্যযুক্ত বই বাছাই হবে সেই প্রক্রিয়া বেশ জটিল ছিল।

“কমিউনিস্ট মতবাদী পূর্ব জার্মানিতে, কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নির্মিত নিষিদ্ধ বইগুলির কোন তালিকা ছিল না,” গাস্নার বলেন।

“কি ঘটেছে সেই মুহূর্তে যখন একজন লেখক তার কাজ প্রকাশ করতে চেয়েছিলেন, অথচ তাঁর কাজের জন্য কোন কাগজ ছিল,” তিনি বলেন।

অবশেষে, মিনুজিন এবং ডকুমেন্টারি দলটি 170 টি শিরোনামভুক্ত বইয়ের তালিকা প্রকাশ করেছে।

তবে জার্মানির বেশির ভাগ বিতর্কিত কাজ বেশ কিছু দেশে নিষিদ্ধ, পার্থেনন, এডল্ফ্ হিটলারের “মেইন ক্যাম্পফ”।

বইটি হিটলারের মতাদর্শের বর্ণনা দেয় যা নাৎসিবাদের ওপর ভিত্তি করে প্রস্তুত , কিন্তু, অশ্লীল কাজের মতই, ইচ্ছাকৃতভাবে প্রদর্শনীর বাইরে চলে যায়।

এদিকে, কিছু শিল্প বিশেষজ্ঞ এই বছরের ডকুমেন্টারির বিসয়বস্তু কী হবে, সেই ব্যাপারে অনুষ্ঠানটি ইতিমধ্যেই একটি কপি তুলে ধরেছেন।

প্রায় 34 বছর আগে, আর্জেন্টিনার জান্তা পতনের পর, মিনুজিন সামরিক একনায়কত্ব দ্বারা জারি করা নেতৃত্ববাদের নিন্দা করার জন্য অনুরূপ বইয়ের ইনস্টলেশন সেট তৈরী করেছেন।

কাসেলে, মিনুজিন এরকম নিষিদ্ধ শিরোনামের কপি সংগ্রহ করতে থাকবেন যতক্ষন না ডকুমেন্টারি শেষ হচ্ছে।

তারপরে, বইগুলিকে জনসাধারণের কাছে আবার বিতরণ করে দেওয়া হবে।

“বইয়ের পার্থেনন” হল “একটি স্মারক প্রকল্প কিন্তু পদার্থ বহির্ভূত ,” বাল-ব্লাঙ্ক বলেন।”এটি আবির্ভূত হওয়ার সাথে সাথেই আবার অদৃশ্য হয়ে যাবে।”

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...