বার বার প্রশ্ন ফাঁস ~ মানসিক চাপে পরীক্ষার্থী সহ অভিভাবক মহল ….

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 130
    Shares

ওয়েব ডেস্কঃ  একের পর এক ঘটনা৷ একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি৷ কাঁহাতক ভালো লাগে৷ বারবার প্রশ্ন ফাঁস৷ সিবিএসই, উচ্চমাধ্যমিকের প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় চরম বিরক্ত পরীক্ষার্থীরা, অভিভাবকরা সকলেই৷

Image result for question paper leak 2018

উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার দ্বিতীয় দিনেও একই ঘটনা। বাংলা পরীক্ষার দিন সকালেই হোয়াটসঅ্যাপে ফাঁস হয়ে গিয়েছিল প্রশ্নপত্র। এবার দ্বিতীয়দিনেও একই ঘটনা।মালদা থেকে প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ উঠেছে৷ দ্বিতীয় দিনে ছিল ইংরেজি পেপার। মালদার কালিয়াচক থেকে হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে সেই প্রশ্নপত্র। পরীক্ষার পর দেখা যায়, হুবহু মিলে গিয়েছে সেই প্রশ্নগুলি৷

এবছরের মাধ্যমিকে কড়া নিরাপত্তা থাকা সত্ত্বেও, প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ ওঠে। আর সেজন্যই এবছর প্রথমবার বিশেষ পর্যবেক্ষক ব্যবস্থা করেছিল উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। এছাড়া এক ঘণ্টার আগে বাথরুম যাওয়ার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা ছিল। তা সত্বেও কিভাবে প্রশ্ন ফাঁস হয়ে গেল, সেই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন।

Image result for question paper leak 2018

এছাড়া, পরীক্ষার হলে রাখা হয়েছিল তিনজন করে ইনভিজিলেটর। একজন ছিলেন স্পেশাল ইনভিজিলেটর, তাঁর দায়িত্বই ছিল মোবাইল ব্যবহারের মত বিষয়গুলিতে নজর রাখা।

বারবার একই ঘটনা ঘটায় ছাত্রছাত্রীদের উপর প্রভাব পড়ছে৷ ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে তারা৷ অনেকেই আছে যারা পড়াশোনায় ভালো৷ তাদের খুব অসুবিধা হচ্ছে বারবার প্রশ্নপত্র ফাঁসের ফলে৷ কোন বিষয়ের ওপর কতটা প্রস্তুতি নিতে হবে, তাই বুঝে উঠতে পারছেন না তারা৷ ভবিষ্যতে ছাত্রছাত্রীদেরই ক্ষতি হবে সেটা এই ঘটনা থেকে পরিস্কার বুঝতে পারছেন অভিভাবকরাও৷

Image result for question paper leak effects students

সারাবছর পড়াশোনা করে পরীক্ষা দিতে এসে এই ধরণের ঘটনার সম্মুখীন হয়ে রীতিমতো বিরক্ত ছাত্রছাত্রীরা৷ এই ধরণের প্রশ্নফাঁসের ফলে যারা প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাচ্ছে সহজে তাদের সঙ্গে আমাদের কোনও পার্থক্যই খুঁজে পাচ্ছেন না নিজেদের৷ ফলে ক্রমশ হতাশ হয়ে পড়ছেন পরীক্ষার্থীরা৷

আগামী ২৫ এপ্রিল সিবিএসই-র দ্বাদশ শ্রেণির অর্থনীতির পরীক্ষা হতে চলেছে৷ কিন্তু, দশম শ্রেণির অংকের পুন্রায় পরীক্ষার বিষয়ে পরে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে৷

প্রসঙ্গত, ২৩ মার্চ একটি অজ্ঞাতপরিচয় ফ্যাক্স আসে সিবিএসই বোর্ডের কাছে৷ যেখানে বলা ছিল, তিন দিন পর দ্বাদশ শ্রেণির অর্থনীতি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র হয়তো ফাঁস হয়ে গিয়েছে৷ অজ্ঞাতপরিচয় সূত্র থেকে আসা ওই ফ্যাক্সটিতে প্রশ্নপত্র ফাঁসের পিছনে একটি কোচিং সেন্টার ও দুটি স্কুল জড়িত থাকার অভিযোগ ছিল৷ পুলিশের মতে, দিল্লির প্রায় এক হাজার ছাত্রছাত্রী ওই ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্র পেয়েছে৷

Image result for question paper leak 2018

অন্যদিকে, দ্বাদশ শ্রেণির অংক পরীক্ষার আগের দিন অর্থাৎ, ২৭ মার্চ বোর্ডের কাছে একটি ই-মেল আসে৷ যেখানে হাতে লেখা অংক প্রশ্নপত্রের ১২ টি ছবি ছিল৷ প্রশ্নফাঁস সম্পর্কে তথ্য পাওয়ার পর পরীক্ষায় স্বচ্ছতা আনার জন্য দশম শ্রেণির অংক ও দ্বাদশের অর্থনীতির পুনর্পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সিবিএসই বোর্ড৷

Related image

এদিকে মনোবল ভাঙছে পড়ুয়াদের৷ প্রস্তুতিতে আগ্রহ হারাচ্ছে অনেকে৷ বারবার পরীক্ষা স্থগিত হওয়ায় তারা হতোদ্যম হয়ে পড়ছে বলে জানাচ্ছেন অভিভাবকরা৷ উদ্বেগজনক পরিস্থিতিতে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ায় ফলাফলের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের মানসিক গঠনেও নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে৷

সিবিএসই হোক অথবা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা৷ পরীক্ষার্থীদের জীবনের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষাগুলি চলাকালীন এইভাবে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ফলে আতংকে ভুগছে পড়ুয়ারা৷ আদৌ তাদের ভবিষ্যত সুরক্ষিত তো? উঠছে এই প্রশ্ন৷

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 130
    Shares

খবর এক নজরে…

No comments found

Sponsored~

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.