খবর ২৪ ঘন্টা

সামনের দু’মাস দুই কোরিয়ায় শান্তি প্রক্রিয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ সময়­­ : মুন

South Korea's new President Moon Jae-In speaks during a press conference at the presidential Blue House in Seoul on May 10, 2017. Moon was sworn in just a day after a landslide election victory, and immediately declared his willingness to visit Pyongyang amid high tensions with the nuclear-armed North. / AFP PHOTO / POOL / JUNG YEON-JE (Photo credit should read JUNG YEON-JE/AFP/Getty Images)

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

দুদেশের শান্তি প্রক্রিয়া সফল হবে৷ সোমবার দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইন জানান, সামনের দুই মাসে যে বৈঠক হতে চলেছে, তার সাফল্য আশা করছে সিওল৷ প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে ইনের মতে বিশ্ব যা করতে ব্যর্থ, তাই করে দেখিয়েছে দুই কোরিয়া৷

এই প্রসঙ্গেই সোমবার বক্তব্য রাখেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রধান৷ দক্ষিণ কোরিয়ায় অনুষ্ঠিত শীতকালীন অলিম্পিকে যোগ দেন উত্তর কোরিযার নেতা কিম জং উনের বোন৷ মূলত শীতকালীন অলিম্পিকের ফলেই দুই দেশের সম্পর্কের বরফ গলতে শুরু করে৷ ঠিক হয় এপ্রিলের শেষ দিকে দুই দেশের সীমান্তবর্তী এলাকা পানমুনজং-এ বৈঠক হবে দুই কোরিয়ার মধ্যে৷

এরআগে, দক্ষিণ কোরিয়ার ১০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল পিয়ংইয়ং সফর করে৷ সফর শেষে জানানো হয় কিম জং উনের সঙ্গে বৈঠক করেছে ওই দলটি৷ উত্তর কোরিযা দুই দেশের বৈঠকের সাফল্য নিয়ে আশাপ্রকাশ করেছে বলে জানানো হয় যৌথ সাংবাদিক সম্মেলনে৷

দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে এই শান্তি প্রক্রিয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে-ইন তার দেশের জনগণকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে, তিনি উত্তর কোরিয়ার সাথে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করবেন।

দ্বিতীয়ত, সিওল আশা করছে দুই কোরিয়ার মধ্যে উত্তেজনা কমলে উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র ও পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে ওয়াশিংটনের সম্পর্কের শৈত্য কাটবে৷ এতে সুবিধা হবে সিওলেরও৷ বাণিজ্যিক ও আর্থিক দৌত্য সম্পর্কের শীতলতা কাটাবে, আখেরে লাভ হবে সিওলের৷

সিওল তাকিয়ে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও পিয়ংইয়ং-এর বৈঠকের দিকেও৷ তবে এই বৈঠকের কথায় সন্তুষ্ট নয় জাপান ৷ এই দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক ভালো হলে, তাদের স্বার্থ নষ্ট হবে বলে আশঙ্কা করছে তারা৷

এদিকে, আলোচনা শুরু হতে চলেছে আমেরিকা ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে৷ এক টুইটার বার্তায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, বৈঠকের পরিকল্পনা হয়েছে। কিম জং-উন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিনিধির সঙ্গে কেবল স্থগিত নয়, পরমাণু অস্ত্র নিরোধকরণের কথা বলেছেন। এছাড়া এ সময় উত্তর কোরিয়া কোনো রকম ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালাবে না বলে সম্মত হয়েছে।

তিন দেশের মধ্যে সম্পর্কের এই টানাপোড়েন আপাতত কোনদিকে গড়ায়, তার দিকে তাকিয়ে গোটা বিশ্ব। সেই প্রসঙ্গেই মুনের মন্তব্য বিশ্ব এখন আমাদের দিকে তাকিয়ে৷ তিনি জানিয়েছেন উত্তর কোরিয়া তাদের এই বন্ধুত্বপূর্ণ অবস্থানেই থাকুক৷ এতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে তাদের সম্পর্কের উন্নতি হবে বলে আশা করেছেন মুন৷

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...