খবর ২৪ ঘন্টা

“গুরু কৃপাহি কেবলম” ~ জেনে নিন আধ্যাত্মিক তথা জ্যোতিষ ক্ষেত্রে বৃহস্পতিবারের গুরুত্ব…

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

ওয়েব ডেস্কঃ  আজ বৃহস্পতিবার, অর্থাৎ গুরুবার। কিন্তু এই গুরুবার বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিভিন্ন রকম। যেমন আধ্যাত্মিক ক্ষেত্রে বৃহস্পতি “গুরু কৃপাহি কেবলম”। আবার জ্যোতিষ ক্ষেত্রে এই গুরুবার বৃহস্পতি কুণ্ডলী বা ছকে অবস্থান দেখে বোঝা যায়। আসুন তবে গুরুবারে গুরুপূজা দিয়ে শুরু করা যাক ” বৃহস্পতিবার ” – এর মাহাত্ম্য।

স্কন্ধপুরাণ মতে বৃহস্পতি প্রভাস তীর্থে ভগবান শিবের কঠোর তপস্যা করেন। আর তাতে তুষ্ট হয়ে শিব তাঁকে দেবগুরু ” পদ প্রদান করেন। তিনি অগ্নিদেবের অবতার, আর ব্যক্তির বৃহস্পতি তুঙ্গ হলে তিনি মন্ত্রীপদ প্রাপ্ত হন।

গুরুবারে গুরুপূজা…

” ব্রহ্মৈব ব্রহ্মবিৎ স্বরম” – আত্মোপনিষৎ
“ব্রহ্মবিদ ব্রহ্মাণি স্থিত:” – গীতা
” ব্রহ্মবিদাপ্নোতি পরম” – তৈত্তিরীয়

 গুহ্যাদ গুহ্যতরা বিদ্যা গুরুগীতা বিশেষত:।
ত্বৎপ্রসাদাদ্ধি শ্রোতব্যা তৎ সর্ব্বং ব্রূহি মে সূত।। …

ভারতবর্ষ আধ্যাত্মিকতার পুণ্য লীলাভূমি। ধর্ম ও আধ্যাত্মিকতার অত্যুচ্চ আদর্শ, সাধনা, অনুষ্ঠান আর সিদ্ধিই ভারতের সম্পদ। আর এই সাধনমার্গ সমস্তই গুরুমুখী। আসলে গুরুবাদ হলো সর্ব্বজনসম্মত। গুরু হলেন বৃহস্পতি, আর তিনি আলোক মার্গ দেখাতে সক্ষম। আর আলোকে রঞ্জিত হিসাবে বৃহস্পতি হলো লক্ষ্মীবার। এখানে নক্ষত্রের কোন নিষেধ থাকে না। তাই পার্বতীর গুরু স্তোত্রে বলা হয়েছে :

“নমো নমো দেবদেব পরাৎপর জগদগুরো।
সদাশিব মহাদেব গুরুগীতাং প্রদেহি মে “।।

আচারে বৃহস্পতিবার… 

পান, সুপারি ও সিঁদুরগোলা, ফল ও উপকরণ দ্রব্য সাজে বৃহস্পতিবার লক্ষ্মীবারে লক্ষ্মীপূজা। আচারে বলা হয় কোশাতে জল রেখে” নম:গঙ্গে চ যমুনে চৈব গোদাবরি সরস্বতি নর্ম্মদে সিন্ধুকাবেরি জলেহস্মিন সন্নিধিং কুরু”। কুরুক্ষেত্র গয়াগঙ্গা প্রভাস পুষ্করাণি চ। পুণ্যান্যেতানি তীর্থানি পূজাকালে ভবত্ত্বিহ ” এই বলে জলশুদ্ধি করে সংকল্প। আর আচরণে শ্রীলক্ষ্মীর আবাহন গীত
” এসো মা লক্ষ্মী, বসো মা লক্ষ্মী, উড়ায়ে কনক আঁচলখানি।
দুহাতে বিতরি করুণাসিদ্ধি, দারিদ্র‍্য দু:খ – নাশ মা নাশিনী….
………আমা পানে চাও করুণা নয়নে,
দাও মাগো শান্তি তাপিত পরাণে,
শেষের দিনে রেখো মা চরণে, ও ভব পারের ঐ তরণী। “
 প্রণাম মন্ত্রে মায়ের চরণে বলি….

জ্যোতিষে বৃহস্পতি …

জন্মকুণ্ডলীতে বৃহস্পতি এক বিশিষ্ট স্থান। জাতকের জন্মকুণ্ডলীতে শুভ ফল দেয়। কিন্তু সব সময় নয়। আবার লগ্ন থেকে অবস্থান করলে এর ফল শুভ। বৃহস্পতি ধন, জ্ঞান, বিদ্যা, সন্তান, এর কারক গ্রহ। আবার কুস্থানে বা যৌথ স্থানে অবস্থান করলে হানিকারক অনিবার্য।

***এবার দেখে নেওয়া যাক যে বৃহস্পতি কোন জায়গা থেকে দৃষ্টি দিলে কি তার ফল লাভ হয়…

জন্মরাশিতে থাকলে মানসিক ভয়,
দ্বিতীয়তে – অর্থিক ভাব
তৃতীয়তে – ক্লেশ
চতুর্থতে – আর্থিক হানি
পঞ্চমেতে – সুখ, অর্থ, বিদ্যা, সন্তান
ষষ্ঠতে – শোক, রোগ, শত্রুতা,
সপ্তমে – রাজসম্মান
অষ্টমে – মৃত্যু
নবমে – আর্থিক লাভ, সুখ
দশমে – বাণী ভঙ্গ, বচন, দারিদ্রতা
একাদশে – আর্থিক লাভ
দ্বাদশে – কষ্ট…

ব্যক্তি বিশেষে বিবিধ ভাবে বৃহস্পতির প্রভাব…

লগ্নে বৃহস্পতি থাকলে ব্যক্তি
সুন্দরী, পণ্ডিত, ধৈর্যবান, দীর্ঘায়ু

দ্বিতীয় ভাবে :
ব্যক্তি ধনী, বাগ্নী, সুন্দরী, পরোপকারী

তৃতীয় ভাবে :
দু:খী, লোভী, পাপী, পরাজিত

চতুর্থ ভাবে :
ধন, বুদ্ধি, ভোগ, সুখ

পঞ্চম ভাবে:
সুখ,পুত্র, ধৈর্য, মিত্র

ষষ্ঠ ভাবে :
পীড়িত, নির্বল, আলসী, শত্রু পরাজয়ী

সপ্তম ভাবে :
পণ্ডিত, কবি,প্রধান বক্তা

অষ্টম ভাবে :
পণ্ডিত আর দীর্ঘায়ু

নবম ভাবে :
রাজা, মন্ত্রী, নেতা

দশম ভাবে :
জ্ঞাতা, ধন, চতুর, সম্পন্ন

একাদশ ভাবে :
ধৈর্যবান, দীর্ঘায়ু, বিদ্বান

দ্বাদশ ভাবে :
আলসি, দোষী, সেরা কাজে লীন, অস্থির বাণী।

তবে মনে রাখতে হবে, যে স্থানে অবস্থান করছে তার ভাব থেকে কিন্তু ক্ষতিকারক ফল দান করে। রাশি বা লগ্ন থেকে ষষ্ঠ, অষ্টম ও দ্বাদশে অবস্থান করলে বৃহস্পতি কুফল দান করে। তেমনই আবার চতুর্থ,সপ্তম আর দশম ভাবে থাকলে তা জাতকের জীবনটাই পরিবর্তন করে দেয়। তবে মকর আও কুম্ভ রাশিতে বৃহস্পতি কুফল দেয়। তবে পুষ্যা নক্ষত্রে ০৫ ডিগ্রী তুঙ্গিতে কর্কটরাশিতে এর ফল যথার্থ। সামগ্রিক আলোচনায় বৃহস্পতিবার গুরুবার। গুরু কৃপাহি কেবলম। আর প্রণামে লক্ষ্মী আহ্বানে –“ত্রৈলোক্য পূজিতে দেবী কমলে বিষ্ণুবল্লভে। যথা ত্বং সুস্থিরা কৃষ্ণা তথা ভব ময়ি স্থিরা”

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...