পাকিস্তানের নাগরিকত্ব হারালেন পারভেজ মুশারফ

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 20
    Shares

পাকিস্তানের একটি বিশেষ আদালতে প্রাক্তন পাক প্রেসিডেন্ট পারভেজ মুশারফের বিরুদ্ধে আনা রাষ্ট্রদ্রোহের মামলার শুনানিতে হাজিরা দেওয়ার কথা ছিল তাঁর। কিন্তু যথা সময়ে হাজিরা দিতে পারেননি। যার ফলে গত ৮ মার্চ তার পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট বাতিলের নির্দেশ দিয়েছিল ওই আদালত। তবে, ওই নির্দেশ বাস্তবায়নের আগে আদালতের আগের নির্দেশ পালন করার জন্য প্রাক্তন সেনাপ্রধানকে সুনির্দিষ্ট সময় বেধে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তিনি তা পালনে ব্যর্থ হওয়ার পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক নথি বাতিল করার নির্দেশ দেয়।

তাই এই মুহূর্তে আর পাকিস্তানের নাগরিক নেই পারভেজ মুশারফ। প্রাক্তন এই পাক প্রেসিডেন্টের পাসপোর্ট ও ন্যাশনাল আইডেন্টিটি কার্ড বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। পাকিস্তানের ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী নাসির উল মুলক এই অর্ডার পাশ করে। এরপরই মুশারফের পরিচয় পত্র বাতিল করেছে সেদেশের ‘ন্যাশনাল ডেটাবেস ও রেজিস্ট্রেশন অথরিটি।’

বর্তমানে দুবাইতে রয়েছেন মুশারফ। এদিকে, পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট একাধিকবার মুশারফকে হাজিরা দিতে বলা সত্বেও তিনি আসেননি। এবার তাঁকে পাকিস্তানে ফিরতে গেলে ট্রাভেল ডকুমেন্ট তৈরি করতে হবে।

২০০৭ সালের নভেম্বরে পাকিস্তানে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করার কারণে পারভেজ মুশাররফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা চলছে। ১৯৯৯ সালে এক রক্তপাতহীন সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে তৎকালীন নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে ক্ষমতাচ্যুত করেছিলেন জেনারেল মুশাররফ। পরবর্তীতে গণআন্দোলনের মুখে ২০০৮ সালের আগস্ট মাসে নির্বাচিত সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করে স্বেচ্ছা নির্বাসনে চলে যান তিনি।

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 20
    Shares

Sponsored~