আস্ত একটা দেশ তৈরি করেছেন পলাতক ধর্মগুরু নিত্য়ানন্দ

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 18
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    18
    Shares

ভারত থেকে পালিয়ে দক্ষিণ আমেরিকার কোনও এক জায়গায় গা ঢাকা দিয়েছেন স্বঘোষিত ধর্মগুরু নিত্যানন্দ। তবে এতদিন পর্যন্ত বোঝা যাচ্ছিলনা যে নিত্যানন্দ আসলে কোথায় লুকিয়ে রয়েছেন। জট ছিল নিত্যাননদের পালানোর সময় নিয়েও। কারণ, বেশ কিছু নথিতে দাবি করা হয়েছে ধর্ষণ ও অপহরণকাণ্ডে অভিুক্ত নিত্যানন্দ দেশ থেকে পালিয়ে গিয়েছেন গত বছরেই। যদিও কয়েক সপ্তাহ আগেই নিত্যানন্দের উধাও হওয়ার খবর প্রকাশ্যে আসে। তবে এবা র গুজরাত পুলিশ হাড়হিম করা তথ্য প্রকাশ করেছে।গোয়েন্দাদের হাতে আসা সাম্প্রতিক তথ্য বলছে, নিত্যানন্দ পালিয়ে গিয়েছেন দক্ষিণ আমেরিকার কাছে ইকুয়েডরের আশপাশে। গোয়েন্দাদের দবি নিত্যানন্দ একটি ‘দেশ’ই কার্যত গঠন করেছেন ত্রিনিদাদের কাছের এক ভূখণ্ডে। যে তথ্য ঘিরে রীতিমতো হতবাক গোয়েন্দা বিভাগ।একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্য বলছে, নিত্যানন্দ যে ‘দেশ’ দক্ষিণ আমেরিকার কাছে তৈরি করেছেন, তার নাম ‘কৈলাসা’। সেই দেশের রয়েছে আলাদা পতাকা, রয়েছে আলাদা পাসপোর্টের ব্যবস্থা। শুধু তাই নয়, দেশের জাতীয় চিহ্নও রয়েছে সেখানে। এমনই তাক লাগানো তথ্য জানাচ্ছেন গোয়েন্দারা।আমেদাবাদ পুলিশ জানাচ্ছে, সারা বিশ্বের যেখানে যেখানে হিন্দুরা অত্যাচারিত হয়েছেন ধর্মের নামে, সেখান থেকে উঠে এসে তাঁরা নিত্যানন্দের দেশ ‘কৈলাসা’ তে থাকতে পারেন।এক বেসরকারি সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট বলছে, গোয়েন্দা সূত্রের দাবি, যে নিত্যানন্দের তৈরি দেশে থাকছে মন্দির নির্ভর ইকো- সিস্টেম। সেখানে খাওয়া দাওয়া থাকছে বিনামূল্যে। পঠনপাঠনও চলেছে সেখানে মন্দির নির্ভর গুরুকূলে।গুজরাত পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের দাবি, এখনও নিত্যানন্দ ইউটিউবে নিজের বক্তব্য পেশ করে চলেছেন বিভিন্ন ভিডিওতে। যে ভিডিও -গুলি আগে , ‘ পরমশিবন জ্ঞানম’ নামকরণের আওতায় প্রকাশিত হত, তা বর্তমানে ‘পরমশিবা বিজ্ঞানম’ নামকরণের আওতায় প্রকাশিত হয়।কেন্দ্রের তরফের সাফ দাবি, কোনও মতেই একটি ভূখণ্ড নিজের নামে কিনে সেটাকে ‘দেশ’ হিসাবে প্রতিষ্ঠা করা যায়না। এজন্য প্রয়োজন রাষ্ট্র সংঘের অনুমোদন। বিশ্বের সমস্ত রাষ্ট্রের মান্যতা। যা নিত্যানন্দের কাছে নেই।

Facebook Comments


শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 18
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    18
    Shares

খবর এক নজরে…

No comments found