ফের সরব রঘুরাম রাজন, নোটবন্দী ও জিএসটি নিয়ে তোপ

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 34
    Shares

রিজার্ভ ব্যাঙ্কের প্রাক্তন গভর্নর রঘুরাম রাজন। ফের একবার বোমা ফাটালেন কেন্দ্রের বিরুদ্ধে৷ তাঁর মতে, নোট বাতিল এবং জিএসটি— এই জোড়া ধাক্কাতেই ২০১৭ থেকে বেলাইন হয়েছে ভারতের অর্থনৈতিক বৃদ্ধি। ২০১২ থেকে ২০১৬ ভারতীয় অর্থনীতির বৃদ্ধির হার ছিল স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি। কিন্তু নোট বাতিল আর জিএসটি–র প্রভাবে সেই বৃদ্ধি কমতে থাকল। সেটাও এমন এক সময়ে, যখন বিশ্ব অর্থনীতিও দ্রুত হারে বাড়ছে।’
রঘুরাম রাজন আরও এক ধাপ এগিয়ে সিদ্ধান্তগ্রহণ ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণের কথা বললেন। ভারতের অর্থনীতিকে ঠিক পথে ফেরাতে তিনটি বিষয়ের ওপর জোর দিয়েছেন, যা এই মুহূর্তে উন্নতির তিন প্রধান প্রতিবন্ধক বলে রঘুরাম রাজন মনে করছেন। এক, জীর্ণ পরিকাঠামো। বলেছেন, রাস্তাঘাট ইত্যাদি তৈরি অর্থনৈতিক বৃদ্ধির শুরুর দিকে সাহায্য করে। কিন্তু সামগ্রিক পরিকাঠামো উন্নয়নের সুযোগ করে দেয়। দুই, দেশের বিদ্যুৎ ক্ষেত্র সাফসুতরো করা, যাতে নিশ্চিত করা যায়, যাদের বিদ্যুৎ প্রয়োজন, তারা বিদ্যুৎ পাচ্ছে। আর তিন, ব্যাঙ্কগুলোকে সমস্যামুক্ত করে ফের সচল, সক্ষম করা।
শুক্রবার বার্কলের ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ায় ভারতের অর্থনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে এক আলোচনাসভার আমন্ত্রিত বক্তা হিসেবে রঘুরাম রাজন বললেন, বছরে ৭%‌ অর্থনৈতিক বৃদ্ধি যদি টানা ২৫ বছর ধরে রাখা যায়, তা হলে খুব, খুবই ভাল বলতে হবে। কিন্তু ঘটনা হল, ভারতের শ্রমশক্তির এখন যা চরিত্র এবং চাহিদা, তার জন্য ওই ৭%‌ বৃদ্ধির হার যথেষ্ট নয়। যে ধরনের পেশাদাররা এখন দেশের শ্রমশক্তির সঙ্গে যুক্ত হচ্ছেন, তঁাদের কর্মসংস্থান হওয়াটা জরুরি। মাসে অন্তত ১০ লক্ষ নতুন কাজের সুযোগ দরকার, যেটা ওই ৭%‌ বৃদ্ধিতে সম্ভব নয়। আর আর্থিক বৃদ্ধির হার যদি তারও নিচে নেমে যায়, তা হলে বুঝতে হবে কোথাও একটা বড়সড় গলদ রয়ে গেছে। কাজেই ন্যূনতম বৃদ্ধির হার ওই ৭ শতাংশেই ধরে রাখতে হবে পরের অন্তত ১০–১৫ বছর। এছাড়া নোট বাতিল, জিএসটি–র ক্ষতিকর প্রভাব নিয়ে নতুন কিছুই বলেননি রঘুরাম রাজন। আগেও তিনি এ নিয়ে সরব হয়েছিলেন, একই হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন, আবারও সে–কথাই বলেছেন তাঁর বক্তব্যে।

Facebook Comments


শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 34
    Shares

খবর ২৪ ঘন্টা

খবর এক নজরে…

No comments found