রেলে অপরাধ রুখতে আরপিএফের ক্ষমতা বাড়ছে?

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 35
    Shares

রেল আইন ১৯৮৯–এ নতুন দুটি ধারা সংযোজন করে আরপিএফের ক্ষমতা বৃদ্ধি করা সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সেই প্রস্তাব ক্যাবিনেটে পাশ করার জন্য পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে খবর। জানা গিয়েছে আরপিএফের ক্ষমতা বাড়াতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। একইসঙ্গে করতে পারবে ঘটনার তদন্তও। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করে যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় আঘাত হানতে চাইছে মোদি সরকার?‌
এই প্রশ্ন ওঠার কারণ হল, আইনশৃঙ্খলা সবসময়ই রাজ্যের বিষয়। সেখানে আরপিএফের ক্ষমতা বৃদ্ধি করে রাজ্যের ক্ষমতা খর্ব করতে চাইছে কেন্দ্রীয় সরকার। জানানো হয়েছে চলন্ত ট্রেনে অপরাধ ঘটলে তা কার ক্ষেত্রে পড়ছে সেটা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়। তাই আরপিএফের ক্ষমতা বৃদ্ধি করলে বিক্ষোভ দেখিয়ে ট্রেনকে বাধা দেওয়া, টিকিট নিয়ে ঝামেলা এবং বিনা টিকিটে যাত্রা করার ঘটনা আরপিএফই সামলে দিতে পারবে বলে মনে করছে রেল। এমনকী আরপিএফের পক্ষ থেকে একটি মোবাইল অ্যাপও নিয়ে আসা হচ্ছে অপরাধের ঘটনাস্থল চিহ্নিত করার জন্য। আরপিএফের ডিরেক্টর জেনারেল অরুণ কুমার বলেন, ‘‌এই আইন পরিবর্তনের ফলে আরপিএফ অনেক তাড়াতাড়ি কাজ করতে পারবে। বর্তমানে যে ব্যবস্থা রয়েছে তার থেকে অনেক দ্রুত তদন্ত করতে পারবে আরপিএফ।’‌ এখন যে পদ্ধতি রয়েছে তা অনেক জটিল।
প্রায়ই রেলে নানা অপরাধ ঘটে থাকে। সেই অপরাধের অভিযোগ দায়ের থেকে তদন্ত আরপিএফের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে করে থাকে সেই রাজ্যের প্রশাসন। এবার থেকে আরপিএফই পারবে রেলে ঘটে যাওয়া অপরাধের অভিযোগ দায়ের করতে। রেলে যে অপরাধগুলি ঘটে তা হল, যাত্রীদের জিনিস চুরি এবং মহিলা ও শিশুদের ওপর অপরাধ নেমে আসা। এতদিন এই বিষয়গুলি যৌথভাবে পদক্ষেপ করা হত।

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 35
    Shares

খবর এক নজরে…

No comments found

Sponsored~