খবর ২৪ ঘন্টা

ভার্জিন জঙ্গল সাফারি ~ এবারের গন্তব্য সাতপুরা

শেয়ার করুন সকলের সাথে...

সাতপুরা বিচিত্র অরণ্য আর বিভিন্ন পশু-পাখি নির্মল বাসস্থানের আরেক নাম।  চারিদিকে গহীন অভেদ্য জঙ্গল নিয়ে গড়ে ওঠা এই বাস্তুতন্ত্রে জীবজন্তুর উপস্থিতি আর তাদের দর্শন আপনাকে উপহার দেবেই জীবনের কিছু স্মরণীয় মুহূর্ত।

সপ্ত-পর্বত থেকে নামকরণ হওয়া সাতপুরা জঙ্গল মধ্যপ্রদেশের হোশঙ্গাবাদ জেলার মোট 1427 বর্গকিলোমিটার এলাকা জুড়ে অবস্থিত।  মধ্যপ্রদেশের অন্যান্য জঙ্গল যেমন কানহা বা বান্ধবগড়ের তুলনায় কম পরিচিতির সুবাদে এখানে পর্যটক আসেন কম। প্রকৃতিও তাই নিজের ইচ্ছামত সাজিয়ে রাখতে পারেন এই রাজ্যের সুন্দরতম জঙ্গলটিকে।   1981 সালে এটিকে জাতীয় উদ্যানের মর্যাদা দেয়া হয়, পরবর্তীকালে  2000 সালে এখানে গড়ে তোলা হয় বাঘেদের জন্য অভয় অরণ্য।

সাতপুরা টাইগার রিজার্ভে এই মুহূর্তে বাঘের সংখ্যা মোট 42 । ন্যাশনাল পার্কে যেতে হলে আপনাকে পেরোতে হবে ডেনওয়া নদী । তার জন্যও আছে বোট পরিষেবা।  বছরে আট মাস মানে অক্টোবরের মাঝামাঝি থেকে জুনের শেষ অবধি খোলা থাকে এই ন্যাশনাল পার্ক।

বাঘ ছাড়া এখানে দেখা মিলবে প্রায় ৫০ রকমের স্তন্যপায়ী ৩০ রকমের সরীসৃপ ও আড়াইশরও বেশি পাখির

জঙ্গল ঘুরে দেখার জন্য পাবেন জিপ  সাফারি , হাতি সাফারি অথবা নদীতে ক্যানো করে ঘুরে দেখারও ব্যবস্থা আছে।  তবে জিপ সাফারিতে চার-পাঁচ জন মিলে আরামে ঘুরে দেখতে পারবেন অধিকাংশ অঞ্চল।

সকাল বেরিয়ে পড়ুন, পথে পাবেন চিতল হরিন বাইসন শম্বর আর হাতিদের দর্শন।   হাতিদের জন্য সংরক্ষিত অঞ্চলে সেরে নিতে পারেন প্রাতরাশ।

আগেই বলেছি সাতপুরা টাইগার রিজার্ভে রয়েছে 42 টি বেঙ্গল টাইগার এছাড়া ভাগ্য ভালো থাকলে দেখা পেতে পারেন ভাল্লুক , লেপার্ড, নীলগাই বা জংলি কুকুরের।

যারা পাখির ছবি তুলতে আগ্রহী তাদের জন্য আছে প্যারাডাইস ফ্লাই-ক্যাচার, মালাবার হুইস্লিং থ্রাশ, হানি ব্যাজার্ড ও হর্নবিল।

সারাদিনের জঙ্গল সাফারি সেরে রিজার্ভএর বোটে করে ঘুরে দেখতে পারেন ডেনওইয়া নদী। যার শান্ত পরিবেশ  ও মনোরম দৃশ্য আপনার মন থেকে নিমেষে মুছে দেবে সব ক্লান্তি।  এছাড়া নদীতে কায়াকিং এর ব্যবস্থাও রয়েছে

কোথায় থাকবেনঃ

“সাতপুরা জঙ্গল রিট্রিট” (সারাংপুর)

চারিদিকে মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশে তৈরি কটেজ আপনাকে স্বাগত জানাবে নদীর ধারে বসে ডিউ-ফাইন্ডারে পাহাড়ি নদী~ জঙ্গলের ল্যান্ডস্কেপ বানানোর।

কিভাবে যাবেনঃ

হাওড়া মুম্বাই মেলে পিপাড়িয়া স্টেশন থেকে 55 কিলোমিটার বাস বা গাড়ি ভাড়া করে যাওয়া যায়। এছাড়া ভোপাল এয়ারপোর্ট (190 কিলোমিটার) ও নাগপুর (330 কিলোমিটার) থেকে সড়কপথে এখানে আসার ব্যবস্থা রয়েছে।

দেখে নিন সাতপুরা জঙ্গল সাফারির উপর তথ্যচিত্র~

 

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...