কলকাতায় লেড রং এবং নিরাপত্তা বিষয়ক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হল স্টেকহোল্ডারদের নিয়ে

ছবি সৌজন্য অনুষ্টুপ ভট্টাচার্য
শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 10
    Shares

টক্সিক লিঙ্ক – ভারতবর্ষের বুকে একটি পরিবেশ সম্পর্কিত গবেষণা এবং এই বিষয়ে পরামর্শদাতা অন‍্যতম জনপ্রিয় এক সংস্থা। ১৯৯৬ সালে প্রতিষ্ঠা হয়া এই সংস্থা ধারাবাহিকভাবে বিষাক্ত দূষনের ক্ষতিকারক প্রভাব এবং প্রতিকারের বিষয় নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা গড়ে তোলার চেষ্টা করে চলেছে । দূষণ সমস্যা থেকে বাঁচতে এবং দূষনমুক্ত পরিবেশ গড়ে তুলতে বিভিন্ন সমস‍্যাবলী নিয়ে বিভিন্ন গ্ৰুপের মানুষের সঙ্গে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে পথ খুঁজে নেবার চেষ্টা করে এই সংস্থা। পরিবেশের বিপদ এবং মানব দেহের ক্ষতিকারক প্রভাবের বিষয়ে বিভিন্ন ধরনের তথ্য সংগ্ৰহ করে সেই তথ্য অন‍্যদের সাথে শেয়ার করে থাকে এই সংস্থা। রঙের মধ্যে লেড ব‍্যবহারের বিষয়টি একটি গ্লোবাল ইস‍্যু। পৃথিবীর বহু দেশ তাদের দেশে রঙের মধ্যে লেডের ব‍্যবহার একেবারে নিষিদ্ধ করেছে। গত ২০০৬ সাল থেকে টক্সিক লিঙ্ক ভারতে রঙের মধ্যে লেডের ব‍্যবহারের বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে । এই কাজ করতে গিয়ে তারা ভারতের বাজারে বিক্রি হওয়া অসংখ্য রঙের নমুনার মধ্যে লেডের উপস্থিতি এবং তার মাত্রার বিষয়টি পরীক্ষা করেছে যা থেকে এটা স্পষ্ট যে বড় মাপের উৎপাদকেরা তাদের উৎপাদিত রঙে লেডের ব‍্যবহার কমিয়েছে। ছোট বড়ো মাঝারি বহু উৎপাদক এখনও রঙে লেড ব‍্যবহার করেই চলেছে। এই প্রসঙ্গে টক্সিক লিঙ্ক আঞ্চলিক স্তরে একটি কর্মশালার আয়োজন করেছিল শহর কলকাতায় । পূর্বাঞ্চলে এই ধরনের কর্মশালায় তারা আহ্বান জানিয়েছিলেন বিভিন্ন স্টেকহোল্ডার- যেমন স্টেট পলিউশান কন্ট্রোল বোর্ড, রিসার্চ ইন্সটিটিউশন, চিকিৎসক, এনবিএল ল‍্যাবরেটরি, সিপিআরআই রঙ শিল্প, নাগরিক সমাজ এবং মিডিয়াকে। এই কর্মশালার মূল উদ্দেশ্য হলো রঙের মধ্যে লেড ব‍্যবহারের বিধিনিষেধ সম্পর্কে বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করা। রঙ প্রস্তুতকারীদের এই বিধিনিষেধ মেনে চলার বিষয়ে যেধরনের সমস্যা রয়েছে তার মোকাবিলা করার বিষয় নিয়ে আলোচনা করা।

Facebook Comments

শেয়ার করুন সকলের সাথে...
  • 10
    Shares

খবর এক নজরে…

No comments found

Sponsored~